মেয়েশিশুদের মানুষ হবার পথটা ততো সহজ নয়!

0

ডা. শিরীন সাবিহা তন্বী:

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে মেয়ে হয়ে জন্ম নেয়া নবজাতক শিশুটির জীবনের পথ পরিক্রমায় মানুষ হয়ে ওঠাটা বড় বেশি কষ্টকর।
যুগের পরিবর্তনে শিক্ষার হার যতই বাড়ুক, সংসদে যতো বেশিসংখ্যক নারীই বিরাজ করুক, নারী প্রধানমন্ত্রীর থাকার বছরের সংখ্যা যতই বাড়ুক, একজন নারীর মানুষ হয়ে ওঠার পথটা দিন দিন ততই বন্ধুর হয়ে উঠছে।

জাতি হিসেবে আমরা বড্ড বেশি সহবত গুণহীন আর শিক্ষিতরা একটু বেশিই হিপোক্রেট! স্বার্থপরতা, একচোখা মনোভাবকে আমরা আমাদের পৈতৃক সম্পদ মনে করি। আর এর ফলস্বরূপ বাড়ছে পশ্চাৎপদতা!

যে মেয়ে শিশুটি বাল্য বিবাহের বদলে শিক্ষিত হয়ে নিজের পায়ে দাঁড়াতে চায়, আত্মনির্ভর হতে চায়, যে মেয়েটি পিতা মাতার একমাত্র সন্তান বা বহু কন্যার একজন বলে বিয়ের পরেও চাকরি করে পরিবারের হাল ধরতে চায়, যে মেয়েটি স্বামী নামক প্রবল শক্তিধর পুরুষটির প্রতিদিনকার শারীরিক এবং মানসিক অত্যাচারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়, যে মেয়েটি নিজ যোগ্যতায় কর্পোরেট জব কিংবা মিডিয়াতে কাজ করে ব্যতিক্রমী পরিবেশে উত্যক্ত হলে তার সম্ভ্রম রক্ষায় প্রতিবাদী হয়, যে কিশোরীটি প্রতিনিয়ত তার আত্মীয় বা শিক্ষকের দ্বারা শারীরিক নির্যাতনের শিকারে প্রতিবাদী হয়, যে মেয়েটি তার মা বলে জ্ঞান করা শাশুড়ীকে দিনের পর দিন চালিয়ে আসা অত্যাচার এবং নোংরামির কঠোর জবাব দেয় – এদের সকলকেই সমান অত্যাচার, নিপীড়ন এবং অপবাদের সম্মুখীন হতে হয়।

সেইসব মেয়েদের বলছি, পুরুষের কথা বাদই দিলাম, নিজেকে প্রগতিশীল পরিচয় দেয়া ঘরের মা বোন, কাছে-পিঠে খালা মাসী, কলিগ বা প্রতিবেশী নারীরাও নিজেদের ব্যক্তিগত স্বার্থ আদায়ে টনটনে অধিকার জ্ঞান থাকলেও তোমার প্রতিবাদ বা অন্যায় প্রতিহত করার দিনগুলিতে তোমাকে সাহস না দিয়ে তোমারই মুণ্ডুপাতে বদ্ধ পরিকর থাকবে!

এ সমাজ তোমায় শৃংখলিত করবে। তোমার চাওয়ার সামান্য মূল্যে অসামান্য তোমাকে আপাদমস্তক কিনে নিবে। সংসার যদি খাঁচাও হয়, তুমি তাকে ত্যাগ করার শক্তি সাহস পাবে না। তোমাকে হতে হবে শৃংখলিত শান্ত প্রাণী। তোমার স্নেহ, তোমার প্রেমের সওদা হবে। শ্রদ্ধা না, ভালোবাসা না, অবহেলার বিনিময়ে তোমার সর্বস্ব লুট করবে তারা। তোমার শ্রম, তোমার ঘাম, তোমার আন্তরিকতার বিনিময়ে কখনও-সখনও দয়া পরবশ হয়ে তোমায় লক্ষ্মী মেয়ে বা বৌ খেতাবও দেবে!তোমার শুধু মানুষ হয়ে ওঠা হবে না।

তোমাদের ভুল পথে পরিচালনা করবার মানুষও কম নেই এ দেশে! তোমার নিজের সন্তান, সন্তানের লালন পালন, শালীন জীবন যাপন! এসব কোন কিছু মানুষ হয়ে ওঠার পিছনে বাঁধা নয়।
বরং দায়িত্ববোধ, মাতৃত্ব, আত্মসম্মান, আত্মনির্ভরতা তোমাকে খাঁটি মানুষ করে গড়ে তুলবে। নারী থেকে মানুষ হয়ে ওঠা মানে XX ক্রোমোজোম বদলে XY হয়ে ওঠা না। পৃথিবীতে XY নিয়ে বহু অমানুষ, কাপুরুষ, কুলাঙ্গার, পশু রয়েছে। আর তাই XX নিয়েই নারীই হয়ে উঠতে পারে বিশ্ববরেণ্য মানব আত্মা!

আর তাই এই দেশে প্রতি মিনিটে জন্ম নেয়া প্রতিটি মেয়ে শিশুর জন্য শুভকামনা। ভণ্ড শিক্ষা, কুসংস্কার আর ভণ্ড লেবাসের ভীড়ে তোমার আত্মার শক্তি ক্ষয় করো না। আত্মশক্তিতে শক্তিমান হও! নিজ আলোতে আলোকিত হও প্রিয় নারী গণ।

শাড়ী, চুড়ি, গয়না, পরচর্চা, পরনিন্দা, পরকীয়া নয়! সততা এবং স্বনির্ভরতা নিয়ে এগিয়ে আসো বাংলাদেশের মেয়ে!
অতঃপর বাংলাদেশের মানুষ হিসেবে বিশ্বের বুকে সম্মানের সাথে মাথা উঁচু করে দাঁড়াও!!

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 316
  •  
  •  
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    319
    Shares

লেখাটি ৫৯৫ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.