নিরাপদ গর্ভ ও মাতৃত্ব নিশ্চিত করার দায় রাষ্ট্রের

0

আসমা খুশবু:

মুক্তির কথা হচ্ছে…
রাষ্ট্র দায়িত্ব নিবে আমাদের কোন কোন কাজের…রাষ্ট্র তো ভবিষ্যত নাগরিকের দায়িত্বই নেয় না আমাদের দেশে! মা হওয়ার আগে থেকে অথবা পরে বেশীরভাগ মেয়েদেরই কাজ করা বন্ধ হয়ে যায় শুধুমাত্র তার সন্তানের নিরাপত্তার কথা ভেবে! নারী মা হবে, দায়িত্ব তার নিজের। শরীরের ভেতরে যাকে তিলতিল করে বড় করছে তার, সাথে নিজের এবং পরিবারের সবার।

একজন নারী মা হবেন, সংবাদটি আনন্দের নিঃসন্দেহে। কিন্তু সাথে সাথে অনেক দায়িত্বপূর্ণ একটি বিষয়। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে অন্তঃসত্ত্বা নারীটি যদি চাকরি করে, তাহলে তো তার কষ্টের শেষ থাকে না। এই অবস্থায় তার কোন কাজটি করা উচিত নয়, কোন কাজটি করতে কতটুকু সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে তার প্রয়োজনীয় ট্রেনিং কর্মক্ষেত্রে অন্তঃসত্ত্বা নারীটি এবং তার সহকর্মীদের দেওয়া হয় কিনা আমার জানা নেই। একজন নারী গর্ভাবস্থায় কর্মক্ষেত্রে তার সহকর্মীদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা না পেলে সেটা তার জন্য শারীরিক এবং মানসিক ক্ষতির কারণ হতে পারে। তাই সেটা কর্মক্ষেত্রে কার্যকর করার নিয়মই থাকা উচিত।

কিন্তু দেশে এ জাতীয় কোনো নিয়ম কোনো প্রতিষ্ঠানে আছে কিনা আমার জানা নেই। উল্টো কোনো নারী প্রেগনেন্ট হলে তাকে কম প্রোডাক্টিভ বলে হেয় করা হয়। আমার মনে আছে আমার প্রেগনেন্সির শুরুতে আমার বস দুই ঘন্টার একটি মিটিং করেছিল আমাকে এবং আমার সহকর্মীদের নিয়ে। মিটিং শেষে আমাকে সিঁড়ি দিয়ে কিভাবে ওঠানামা করবো তা ধরে ধরে শিখিয়ে দিয়েছিল। সব সহকর্মীকে অনুরোধ করেছিল আমাকে সহযোগিতা করার জন্য, বলেছিল এটা তাদের চাকরির অংশ, কেউ যেন দয়া মনে না করে। আমাকে বলা হয়েছিল আমি যেন দরকার মনে করলেই পাঁচ, দশ মিনিটের একটা ব্রেক নেই। আরও অনেক সাবধানতাসহ কিছু কাগজ সই করতে হয়েছিল। যেদিন ডাক্তারের সাথে এপয়েন্টমেন্ট থাকবে, সেদিন ছুটি দিতে তারা বাধ্য। এমনকি কোনো কারণে অসুস্থ লাগলে ছুটি দিতে বাধ্য। এটা খুব সংক্ষিপ্ত বর্ণনা এখানকার কর্ম পরিবেশের।

আমার এক বন্ধু একটি নামকরা পত্রিকায় কাজ করতো। প্রেগনেন্সির সময় তার বসসহ সহকর্মীদের আচরণে অতীষ্ঠ হয়ে সে বাচ্চা জন্মের তিনমাস আগে কাজ ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছিল। দেশে একজন নারী কী কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে তার কর্মক্ষেত্রে পৌঁছায়, তা শুধুমাত্র সেই নারীটি জানে। এরপর সহকর্মীদের কাছে সহযোগিতার খুব বেশি আশা না করলেও শারীরিক অবস্থার জন্য মাঝে মাঝে সহযোগিতা চাইতে বাধ্য হোন। সমস্যাটা ঠিক তখনই বাঁধে। সহকর্মীরা মনে করে, তারা ওই নারীটির থেকে বেশি কষ্ট করে তার সমান বা কম বেতন পাচ্ছেন। আবার বস ভাবছেন, ওই নারীটির প্রোডাক্টিভিটি আগের চেয়ে কমে গেছে, তার জায়গায় অন্য কাউকে নিলে হয়তো বেশি প্রোডাকশন পাওয়া যাবে। এই চিন্তা থেকেই তারা তাকে অসহযোগিতা করেন। তখন ওই নারীটি এমন কর্মপরিবেশে আর টিকে থাকতে না পেরে শেষ পর্যন্ত হয়তো চাকরিটা ছেড়েই দেন। এ তো গেল কর্ম পরিবেশ।

এরপর আছে ঘরের পরিবেশ। সকালে উঠে নিজেরসহ পরিবারের সকলের খাবারের দায়িত্ব তাকেই নিতে হয়। কোনো সহকর্মী থাকলে তার সহযোগিতায় সকাল, দুপুরের সমস্ত আয়োজন করে তবেই সে অফিসের উদ্দেশ্যে রওনা দিতে পারে। আর সহকর্মী না থাকলে একহাতে সব সামলে তারপরেই গন্তব্য। পারিবারিক এমন অসহযোগিতা একজন নারীর গর্ভাবস্থায় মারাত্মক ক্ষতির কারণ হতে পারে।

ইংল্যান্ডে একজন নারীর গর্ভাবস্থায় যখন তার নিয়মিত চেকআপ হয়, তখন শুরুতেই তাকে জিজ্ঞাসা করা হয়, তার পরিবারের লোকজন তাকে ঠিকঠাক সহযোগিতা করে কিনা, পার্টনারের দ্বারা কোনো রকম সেক্সুয়াল ভায়োলেন্সের শিকার হচ্ছে কিনা, কর্মক্ষেত্রে সহযোগিতা পাচ্ছে কিনা! একটি ক্ষেত্রেও যদি অভিযোগ করা হয়, তবে হাসপাতালের মেটার্নিটি বিভাগ নিজেদের দায়িত্বে সেখানে যোগাযোগ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়।

এরপর আছে মাতৃত্বকালীন সময়। বাচ্চা জন্মের আগে, পরে মিলিয়ে নয় মাসের ছুটি নিতে পারবে, তারপর আছে ১৮ সপ্তাহের আনপেইড প্যারেন্টাল লিভ। চাইলেই নেওয়া যায়। বাচ্চা জন্মের সকল দায়িত্ব রাষ্ট্রের। বাচ্চার সকল চিকিৎসা ১৬ বছর পর্যন্ত রাষ্ট্র বহন করে। ঔষধ থেকে শুরু করে কোনো কোনো বাচ্চার গায়ে মাখা লোশন, গোসলের সাবান, খাবার দুধটা পর্যন্ত রাষ্ট্র বহন করে। এমনকি নতুন মায়ের একবছর পর্যন্ত বিভিন্ন চিকিৎসা সেবা ফ্রি, ঔষধ ফ্রি। এটা তার অধিকার, কোনভাবেই এটাকে দয়া বলা যায় না।

আমাদের দেশে একজন নারী গর্ভবতী হওয়া মানেই হবু বাবা-মায়ের মনে খরচের নতুন হিসাবের টেনশন শুরু হয়। গর্ভবতী অবস্থা থেকেই শুরু হয় চিকিৎসা সেবার নামে প্রতিমাসে অতিরিক্ত অর্থ গোনা। বাচ্চা জন্মদানের সময় একটা বিরাট অংকের টাকা দরকার পরে, আজকাল খুব সহজ, সাধারণ হিসাব হয়ে গেছে। ডাক্তাররা সিজার ছাড়া খুব কম বাচ্চাই জন্ম দেওয়ান, তাই বাবা-মায়েরা নিজেরাই নির্দ্দিষ্ট দিন ধার্য করে নির্দ্দিষ্ট পরিমাণ টাকা নিয়ে, অর্থাৎ প্যাকেজের আওতায় ওটিতে ঢোকেন। আমার প্রথম বাচ্চাটার জন্য আমরা স্বাভাবিক জন্মের অপেক্ষা করছিলাম। নির্দ্দিষ্ট সময়ের থেকে এগারো দিন বেশি অপেক্ষার পর ডাক্তার বিপদের আশঙ্কায় ইমার্জেন্সি সিজার করেছিল।

এখনকার সময়ে দেশে এটা হয়তো ভাবাই যায় না। বাচ্চা জন্মের পর নিয়মিত বিরতিতে একজন হেলথ ভিজিটর বাড়িতে এসে বাচ্চা এবং মায়ের শারীরিক সুস্থতাসহ পারিবারিক সমস্যারও সমাধানের পরামর্শ দেন। বাংলাদেশে এসব বিষয় যদিও এখনও ভাবনা থেকে অনেক দূরে। একজন শিশু মায়ের গর্ভে থাকায় অবস্থায় যখন শরীরে গুলিবিদ্ধ হয়, তখন ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নিরাপত্তা নিয়ে ভয় হওয়াটা স্বাভাবিক। হতে পারে ওটা একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা, কিন্তু দায়টা তো রাষ্ট্র কোনভাবেই এড়াতে পারে না। কিছুদিন আগে এক নারী টাকার অভাবে সরকারি প্রসূতি ভবনের সামনের রাস্তায় বাচ্চা জন্ম দিতে বাধ্য হলো, জন্মের পরপরই বাচ্চাটির মৃত্যু হলো, এ দায়ও রাষ্ট্রের।

এসব বিচ্ছিন্ন ঘটনা, কিন্তু একটি রাষ্ট্রের প্রসূতিকালীন, মাতৃত্বকালীন সহযোগিতাই সে রাষ্ট্রের পরবর্তী প্রজন্মকে নিরাপদে, নিশ্চিন্তে সামনে এগিয়ে যাবার পথ দেখায়। বিভিন্নভাবে দেশ সামনে এগিয়ে যাচ্ছে, এখন বোধহয় সময় এসেছে দেশের প্রতিটি নারীর প্রসূতি এবং মাতৃত্বকালীন সকল দায়িত্ব রাষ্ট্রের নেবার। কর্মস্থলে সহকর্মীদের সহযোগী মনোভাবের জন্য শক্ত আইনও বোধহয় সময়োপযোগী। সর্বোপরি একটি রাষ্ট্র তার কার্য পরিচালনায় নারী বান্ধব না হলে সে রাষ্ট্রের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবেই।। (চলবে)

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    4
    Shares

লেখাটি ১৯৩ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.