দিনভর গুঞ্জন শেষে রনির ‘না’

golam mawola roniউইমেন চ্যাপ্টার (২৩ জুলাই): দিনভর পটুয়াখালী-৩ আসনের সাংসদ গোলাম মাওলা রনির পদত্যাগ নিয়ে গুঞ্জন শোনা গেলেও অবশেষে তিনি জানিয়ে দিলেন, পদত্যাগ করছেন না। তবে এটাও বলেছেন যে, দল যদি তাকে নিয়ে কোনরকম বিব্রত করে এবং সেই প্রেক্ষিতে তার পদত্যাগ চায়, তাহলে তিনি অবশ্যই তা মেনে নেবেন।
আজ মঙ্গলবার বিকেলে জাতীয় সংসদের মিডিয়া সেন্টারে তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান।

সাংসদ রনি বলেন, ‘কখনো মনে হয়েছে পদত্যাগ করি, কখনো মনে হয়েছে করব না। এ নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে ছিলাম। তাই পদত্যাগ করতে পারি বলে সকালে ফেসবুকে একটা স্ট্যাটাস দিয়েছি। এর পরপরই এলাকা থেকে লোকজন ফোন করে আমাকে পদত্যাগ করতে না করেছে। আমি মাননীয় স্পিকার ও দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেছি। তাছাড়া আমি নির্বাচিত প্রতিনিধি। জনগণের প্রতি আমার কিছু দায়বদ্ধতাও আছে। এখন আমি পদত্যাগ করব না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের দুজন সাংবাদিককে পেটানো নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আত্মরক্ষার অধিকার সবার আছে। আমার শরীরের ওপর যদি কোন আঘাত আসে, তা প্রতিহত করার অধিকার আছে আমার। তবে লাথি মেরেছি বলে যে অভিযোগ উঠেছে, তা সত্য নয়। ভিডিওটি ভাল করে দেখলেই সেটা বোঝা যায়। তাছাড়া আমার কাছেও ফুটেজ আছে। আমিও সেটি আদালতে দেখাবো’।

তিনি আরও বলেন, একজন আইনপ্রণেতার যেমন জানা উচিত তার ক্ষমতা কতটুকু, তেমনি একজন সাংবাদিককেও জানতে হবে, একজন মানুষের কতটা পাবলিক আর কতটা প্রাইভেট।

বিষয়টি যেহেতু মামলার পর্যায়ে চলে গেছে, বাকি বিতর্কটুকু আদালতে মীমাংসা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। ঘটনাটি খারাপ ইমেজ তৈরি করেছে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে রনি বলেন, ‘এই ঘটনায় গণমাধ্যমের জন্য ভাল দিক হলো, আমাদের কি করণীয় তা সামনে চলে এসেছে। আমরা আমাদের অধিকার সম্পর্কে অনেকেই জানি না’।

তিনি ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের বিরুদ্ধে মানহানি মামলাসহ হাইকোর্টে আরও দুটো মামলা করবেন বলে জানান। পুরো ঘটনাটিকে সাংবাদিকের সাথে বিরোধ নয়, বরং ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ এবং চ্যানেলটির অন্যতম মালিক সালমান এফ রহমানের সাথে তার ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব বলে অভিহিত করেন রনি।

‘সালমান এফ রহমানকে আমাদের দলের লোকজন ক্ষমতাশালী বলে মনে করেন। কিন্তু আমি মনে করি, তিনি কেউ নন আওয়ামী লীগের। তিনি দলকে ‘ওওন’ করেন না, যেভাবে আমি করি’- বলেন সাংসদ।

গত শনিবার দুপুরে পেশাগত দায়িত্ব পালন করার সময় ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের দুই প্রতিবেদক ইমতিয়াজ মোমিন ও ভিডিও চিত্রগ্রাহক মহসীন মুকুলকে বেধড়ক পেটান সাংসদ গোলাম মাওলা ও তাঁর সহযোগীরা। এরপর উভয় পক্ষ পাল্টাপাল্টি মামলা করে। রনি ঘটনার পরদিন আদালতে হাজির হয়ে পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় জামিন পান। এ ঘটনার পর রনি পদত্যাগ করতে পারেন বলে গুঞ্জন ওঠে। এদিকে, রনির দায়ের করা মামলায় আজ দুজন সাংবাদিক জামিন পেয়েছেন।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.