স্রেফ মাংস আর চামড়া

নিও হ্যাপি চাকমা:

ওরা তোর চুল কেটেছে, তো কী হয়েছে? ভরে যাবে মাথা আবার নতুন চুলে।
ওরা তোর যৌনাঙ্গ চেটেপুটে খেয়েছে, তো কী হয়েছে?
ভাব, ওরা একটা চামড়াকে দলামচা করেছে।

হে ধর্ষিত নারী, যতদিন এই মাংসকে শরীর ভাববি ততদিন ধুঁকে ধুঁকে মরবি,
ধর্ষক ধর্ষণ করেছে একবার, সমাজ বারবার।
প্রগতিশীল, নারীবাদীরা তোর ক্ষতে সহানুভূতির হাত বুলিয়ে বুলিয়ে দগদগে জখম করবে।
ব্যথা কিন্তু তুই-ই পাবি।
ন্যায়বিচারের মুলা দেখিয়ে দেখিয়ে তোর জবানবন্দীর পর জবানবন্দী নেবে আপামর সামাজিক জীবগুলো!

কিন্তু, মনে রাখিস, ভব নদীর এই দরিয়া পাড়ি দিতে হবে তোকে একা।
শক্ত কর নিজেকে, ভুলে যাহ্ বিদীর্ণ সেই দুঃস্বপ্ন!
ভাব, তোর শরীর কোনো পণ্য নয়, কেউ আঁচড় কাটলেই তা নষ্ট হয়ে যায় না।
নষ্ট তো হবি তখন, যখন এই দুঃস্বপ্ন তোকে ঘুমাতে দেবে না।

তাই বলে বলছি না ছেড়ে দে কুকুরকে!

বলছি, নিজেকে বুঝা, সামলা, কিছুই হয়নি তোর, অঙ্গব্যথা সারার সাথে সাথে সারিয়ে নে মনের ব্যথা।
আর জয়ের নেশা নিয়ে, মিশে যা আট দশজনের সাথে জীবনযুদ্ধে!
ধর্ষককে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বল, “কিছুই হয়নি আমার, তোর ক’টা আঁচড়ে!”

তখন, হেরে যাবে ঘুণেধরা এই পাশবিক সমাজ।

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.