রূপার জন্যে আরও দুটো লাইন

0

নাদিরা সুলতানা নদী:

রূপা চলে গেছে। ওকে হারানোর পর একটা একটা দিনও চলে যাচ্ছে। রূপা’কে ঘিরে শোকের যে দাগ তার ক্ষত অনেকটাই শুকিয়ে আসছে… যেমনটি আমাদের হয়েছে ইয়াসমিন, পূর্ণিমা, তৃষা, রাহিমা, আফসানা, পূজা, তনুসহ অকালে হারিয়ে যাওয়া অনেক নাম জানা না জানা শুকতারা’দের জন্যে।

রূপার ঘটনাটি সামনে আসার পর তাৎক্ষণিক প্রতিবাদে, প্রতিক্রিয়ায়, রাত জেগে কেবল ঢালতে পেরেছিলাম কিছু বিশুদ্ধ আবেগ। যার আসলে কোন মানেই নেই। তারপরও বলাই বাহুল্য সেই আবেগ ছুঁয়েছে অনেক বেশি মানুষকে। উইমেন চ্যাপ্টারে আমার আর কোন লেখা এতো বেশি মানুষ পড়েছে বলে মনে করতে পারছি না।

উইমেন চ্যাপ্টারের মূল পোর্টালের পাশাপাশি ফেসবুক ফ্যান পেজ, পেজটির এডিটর সুপ্রীতি’দি’র ফেসবুক শেয়ার এবং আমার নিজের পোস্ট শেয়ারটির ভিউ আমার জন্যে রীতিমতো একটা স্মরণীয় বিষয়। যদিও এতেও কিছুই যায় আসে না।

তবে স্মরণীয় এবং বিষয়টি নিয়ে আবারো কিছু বলা এই জন্যে যে, আমার লেখাটির নিচে এসেছে ভীষণ ক্ষুব্ধ, বিক্ষুব্ধ, আবেগময়, মন ভেঙ্গে যাওয়া, সাহসী, নেতিবাচক এবং মিশ্র অনেক অনেক মতামত।

ইনবক্সে পেয়েছি অনেক বেশি মেসেজ। অল্প কিছু অসম্ভব ভালো মানুষকে কাছে এনে দিয়েছে এই লেখাটাই। অনেকের সাথেই ইনবক্সে কথা হচ্ছে। একে অপরকে দীর্ঘশ্বাস শেয়ার করছি, দিচ্ছি স্বপ্ন, শোনাচ্ছি আশার বাণীও। বলছি এমন কালো সময় আমাদের দূর হবেই একদিন সেই চাওয়া থেকে।

তবে অনেককেই সময় করে এখনও রেসপন্স করতে পারিনি। কিছু রেসপন্স করতেও চাই না। চাই না, যারা রূপা’র প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে সেই শ্যাম এর গীতই গাইছেন… রূপা’র দিকে না তাকিয়ে নিয়ে আসছেন মেয়েদের পোশাক আশাক, রাতে চলা কেন এবং এমন অন্য নানান বিষয়াদি দুঃখজনকভাবে। এই সব নিয়ে কথা বলতে ক্লান্ত লাগে।

তবে রূপা’র জন্যে আমার দুই ছত্র লেখাকে ঘিরেই যে মানুষদের নানান রকম অনুভূতির দেখা পেলাম তা যেন আমাকে এবার একটু বেশিই অন্য ভুবনে নিয়ে গেলো।

যা যা ভাবছি, সবার সব রকমের কমেন্ট পড়ে, দেখে শুনে এবং কিছু মানুষের উদ্যোগে ঢাকায় যে প্রতিবাদ সমাবেশ হলো তার উপস্থিতি দেখে চরম হতাশ হয়ে তাই লিখতেই আজ বসা।

১।  রূপা-তনুদের এভাবে হারিয়ে যাওয়ার বিষয়টি অনেক বেশি মেয়েদেরই কেন যেন ছুঁয়ে যায় এখনও শুধু। বাংলাদেশের বেশিরভাগ ছেলেই মনে করে এটা ‘মেয়েদের প্রতিবাদের’ই বিষয়।

২।  কোন একটা ঘটনা নিয়ে দিনের পর দিন ফলো আপ করার মতো কোন সংগঠনই ওভাবে নেই।

৩। যাদের সবচেয়ে বেশি সোচ্চার হওয়া উচিত, প্রতিবাদ মুখর হওয়া উচিত সেই ছেলেদের সচেতনতা বা মানসিক সুস্থতার বিকল্প কিছুই নেই এই রকম একের পর এক নারী নিপীড়নের ঘটনা বন্ধে এই সত্য অনুধাবন করাতেই হবে। এটি নিয়ে অনেক বেশি কাজ হওয়া উচিত, যদিও সময়টা যে আমাদের অনেক বেশিই খারাপ, তা এর মাঝেই দেখিয়ে ফেলেছে।

৪।  নানান টিভি আলোচনা দেখে, ফেসবুক শেয়ারে হঠাৎ ধার্মিক হয়েছেন এমন জনগোষ্ঠীকে কিছুতেই এই রকম একটি বিষয়ের প্রতিবাদে আনা যাচ্ছেই না। যেনতেনভাবে টেনে আনছেন সেই অনুভূতিই। পুরো বিশ্ব দেখছেন নেট এ, কিন্তু বাংলাদেশের মেয়ে এলেই হয়ে যাচ্ছেন কী ভীষণ নির্মম এবং বিচারক!

৫। ঘটনা যতো নির্মমই হোক তার প্রতিক্রিয়া সমাজের সর্বস্তর থেকে আসছেই না, সবচেয়ে দুঃখজনক এটিই। কোন একটি ঘটনা থেকেও মানুষ জ্বলে উঠছে না।

৬। মধ্যবিত্ত বা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের খেটে খাওয়া বা সামনে এগিয়ে যেতে চাইছে পরিবার-পরিজন নিয়ে সেই মেয়েগুলো যদি হারিয়ে যায়, তবে আমরা আর কোন বাংলাদেশ নিয়ে স্বপ্ন দেখবো!

৭। আমরা অনেকেই লিখছি, চাইছি যেভাবেই হোক বন্ধ হোক সকল প্রকার যৌন হয়রানি। তবে যাদের জন্যে বলা তাদের কানে কি আদৌ পৌছাচ্ছে এই বার্তা?

৮। মেয়েদের সাহসী হওয়ার পাশাপাশি কৌঁসুলি হতে বলাটাও এখন এই সময়ের বাংলাদেশে নিয়তি হয়ে দাঁড়িয়েছে যেন।

৯। সবচেয়ে দুঃখজনক হচ্ছে, রাষ্ট্র দিনের পর দিন কোন একটি ঘটনারও কোন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির কোন উদাহরণ তো রাখতেই পারেনি, বিশেষ করে এই বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কোন মন্ত্রণালয় বা ব্যক্তিকে খুব সিরিয়াসলি দেখাই যাচ্ছে না তীব্র প্রতিবাদে। মিডিয়াতে (বেসরকারি উদ্যোগে দুই একটা ছাড়া) নেই কোন সচেতনতামূলক প্রচার প্রচারণা।

১০। এবং যে বিষয়টি চরম হতাশাজনক শুনেছি আমাদের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী দৈনিক পত্রিকা পড়েন, সংবেদনশীল মানুষ, নারী বান্ধব নাইবা বলি, জনবান্ধব বা গণবান্ধব হয়েও তো একটি ঘটনায় বললেন না, ‘এরা কারা, এই সব নির্যাতকদের আইনের আওতায় আনো। আমাদের সোনার বাংলাদেশে কোন রূপাকেই এভাবে হারিয়ে যেতে আমি দেবো না’ কিছুতেই না, এখনও তো শুনলাম না উনার মুখে এমন কোন উচ্চারণ!

তাই সবার কাছে অনুরোধ নিজ নিজ জায়গা থেকে আসুন কিছু করি, করতেই হবে। রূপা’র কেসটির ফলোআপ কি আমরা কোনভাবে আশা করতে পারি, মানে কেউ কি কাজ করছেন, করলে সেটি কি তুলে আনবেন সবার জন্যে?

মেলবোর্ন, ভিক্টোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লেখাটি ৫৩৬ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.