নারী স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে শরীয়া আইনের বিলোপ জরুরি: তসলিমা

0

উইমেন চ্যাপ্টার:

ভারতের সুপ্রিম কোর্টের তিন তালাককে ‘অসাংবিধানিক’ এবং ‘বেআইনী’ ঘোষণা করে দেয়া রায়ের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন নির্বাসিত লেখক তসলিমা নাসরিন। তিনি বলেছেন, এই রায় মোটেও নারী স্বাধীনতা নিশ্চিত করে না। প্রকৃত অর্থে নারী স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হলে আরও পিছনে যেতে হবে, ১৪শ বছর আগের পুরনো কোরানের আইনে পরিবর্তন আনতে হবে।

টুইট বার্তায় তসলিমা লিখেছেন, তিন তালাককে বেআইনী করা কিছুতেই নারী স্বাধীনতা না, নারীকে শিক্ষিত করে তুলতে হবে, এবং আত্মনির্ভর করতে হবে। তিনি বলেন, ১৪ শ বছর আগেকার পুরনো কোরানে বর্ণিত আইনকে নির্মুল করা হোক, আমাদের প্রয়োজন সমতার ভিত্তিতে আধুনিক আইন।

তসলিমা আরও বলেন, কেন শুধুমাত্র তিন তালাক? সমগ্র ইসলামি আইন অথবা শরীয়া আইনের নির্মূল করা উচিত।
মানবতার স্বার্থে সকল ধর্মীয় আইন তুলে নেয়া আবশ্যক। ধর্মীয় আইন এবং এর রীতিনীতিসহ সব ধর্মই মূলত নারীবিরোধী।

নাস্তিক বলে সুপরিচিত লেখক তসলিমা নাসরিনের প্রশ্ন, তিন তালাকের কথা কোরানে নেই। সেইজন্যই কি এতে হাত দেয়া? অথচ কোরানে বহু বৈষম্য, অবিচার এবং অসমতা রয়েছে। এগুলো কি থাকা উচিত?

দিনের শুরুতে, রায় ঘোষণার আগে লেখক তার টুইট বার্তায় লিখেন, ভারতের প্রগতিশীল জনগণ অপেক্ষা করে আছে তিন তালাকের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের রায় দেখার জন্য।

সুপ্রিম কোর্ট এক রায়ে মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রচলিত তিন তালাককে ‘অসাংবিধানিক’, ‘বেআইনী’ এবং ‘ইসলামের অংশ নয়’ বলে উল্লেখ করেছে। পাঁচজন বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত এই বেঞ্চে তিনজনই রায়ের পক্ষে ছিলেন।

পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ এই রায় দিয়ে বলেছেন, এই প্রথা বিলোপ করতে ভারতের সংসদকে আগামী ছয় মাসের মধ্যে আইন পাস করাতে হবে। তত দিন পর্যন্ত তিন তালাক প্রথা প্রয়োগ করা যাবে না।

সূত্র: এনডিটিভি

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লেখাটি ৫৭৭ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.