ছেলে সন্তানকে নারীবাদী করে গড়ে তুলুন

ড. সীনা আক্তার:

‘একজন ছেলে শিশুকে কিভাবে নারীবাদী করে বড় করবেন’, নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত প্রতিবেদনটি লিখেছেন CLAIRE CAIN MILLER নামের লেখক। চমৎকার শিক্ষণীয় একটা প্রতিবেদন। এর অনেক কিছুই নতুন কিছু না, অনেক নারীবাদী বিক্ষিপ্তভাবে এ বিষয়ে বলেছেন। আমিও আমার কিছু লেখায় উল্লেখ করেছি। এছাড়া পেশাগতভাবে প্যারেন্টিং ক্লাশে আমাকে নিয়মিতই এসব আলোচনা করতে হয়। তবে প্রতিবেদনটিতে সবকিছু একসাথে উপস্থাপন করায় লেখাটি আমার দারুন মনে হয়েছে।

যাই হোক, আজকের দিনে আমাদের সমাজ বাস্তবতায় ছেলে সন্তানকে নারীবাদী হিসাবে প্রতিপালন করা জরুরি। কীভাবে?

বিস্তারিত প্রতিবেদনটিতে আছে। তবে মূল ভাবনাগুলো হচ্ছে:

১. ছেলে বাচ্চাদের কাঁদতে দেয়া, কারণ আবেগের কোন লিঙ্গ নেই এবং আবেগ সঠিকভাবে প্রকাশ করা উচিৎ;

২. ছেলে বাচ্চার সামনে লিঙ্গ বৈষম্যহীন আদর্শ সৃষ্টি করা;

৩. তাকে তার মতো হতে দেয়া;

৪. নিজের যত্ন নেবার শিক্ষা দেয়া;

৫. অন্যের যত্ন নেবার শিক্ষা দেয়া;

৬. ঘরের কাজ ভাগাভাগি করা;

৭. মেয়ে বাচ্চাদের সাথে বন্ধুত্বে উৎসাহ দেয়া;

৮. ‘না’ এর অর্থ ‘না’, এটা শেখানো;

৯. অন্য ছেলেদের অন্যায়ে সোচ্চার হতে শেখানো;

১০. মেয়েদের নামে অপমানজনক শব্দ/বাক্য কখনোই ব্যবহার না করা;

১১. বালিকা, নারী বিষয়ে প্রচুর পড়াশোনায় উৎসাহ দেয়া;

এবং ১২. ছেলেবেলাকে উপভোগ করতে দেয়া। (নিচে লিংক)

আমাদের অধিকাংশ মা-বাবা ছেলেদের বড় করতে উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো বিবেচনা করেন না, বরং অনেক বিষয়ে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন। যেমন মেয়েদের সাথে বন্ধুত্ব এবং মেয়েদের বিষয়ে পড়াশোনা। এতে ছেলেরা বড় হয় মেয়েদের বিষয়ে কৌতুহল নিয়ে, কারো থাকে স্বাস্থ্যকর কৌতুহল এবং অনেকের থাকে নেতিবাচক কৌতুহল যা বিপদজনক।

প্রথমত, মেয়েদের সম্পর্কে নোংরা ভাবনার কারণেই নারী-পুরুষের বৈষম্য সমাজে জেঁকে আছে; দ্বিতীয়ত নারী নিপীড়ন-নির্যাতন প্রাত্যহিক ঘটনার অংশ হয়ে উঠেছে। ছেলে বাচ্চাদের ছোটবেলা থেকেই নারী বিষয়ে, বিশেষ করে নারীর শরীর বিষয়ে পড়াশোনার সুযোগ থাকা দরকার। নিজের অভিজ্ঞতায় দেখেছি এসব বিষয়ে বড়দের মধ্যে যতটা জড়তা থাকে, বাচ্চাদের মধ্যে ঠিক এর উল্টো। বাচ্চারা এসবকে তাদের অন্য পড়ার বিষয় যেমন অংক, ইংরেজীর মতই স্বাভাবিক বিষয় মনে করে।

ছোটবেলা থেকে নারী, নারীর শরীর বিষয়ে জ্ঞান থাকলে সেই ছেলে খুব সহজেই তার নিজের মা-বোনকে অধিক অনুভব করতে পারে এবং প্রাপ্তবয়সে নিজের নারী বন্ধু, সঙ্গীর প্রতি অধিক সংবেদনশীল হতে পারে। ছোটবেলা থেকে মেয়েদের সাথে বন্ধুত্বও নারীর প্রতি সন্মানজনক মানসিকতা তৈরিতে সহায়ক। রাষ্ট্রীয়ভাবে, সামাজিক-শিক্ষা নীতির মাধ্যমে এ বিষয়গুলো বাস্তবায়ন করা এখন বর্তমান যুগের দাবি।

https://www.nytimes.com/…/how-to-raise-a-feminist-son.html

শেয়ার করুন:
  • 2K
  •  
  •  
  •  
  •  
    2K
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.