অন্য রকম ভালবাসা!

0

অপর্ণা চক্রবর্ত্তী:

মেয়েটির ডায়েরি:
বিয়ের প্রতি কোনো কালেই আমার আগ্রহ ছিলো না ৷ বিয়ে মানে নিজের স্বাধীন জীবন অন্যের অধীনে চলে যাওয়া ৷ অর্থাৎ পরাধীন হয়ে পরা ৷ কিন্তু তারপরও মা বাবার জোরাজুরিতে বিয়েটা করতেই হলো ৷ তবে বাসর রাতেই স্বামীকে জানিয়ে দিয়েছি যে বিয়েতে আমার মত ছিলো না ৷ বাধ্য হয়ে বিয়েটা করতে হয়েছে ৷ সুতরাং অামার সামনে যেন স্বামীর অধিকার ফলাতে না আসে ৷ কিন্তু আমাকে অবাক করে দিয়ে সেও বললো, এই বিয়ের প্রতি তারও নাকি কোন আগ্রহ নেই৷ বলেই বালিশ নিয়ে গিয়ে সোফায় শুয়ে পরলো ৷
.
ছেলেটির ডায়েরি:
সবে মাত্র চাকরিতে জয়েন করেছি৷ এর মধ্যেই বাবা মা বিয়ের জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন৷ অনেকটা জোর করেই মেয়েটির সঙ্গে বিয়েটা করালো৷ বাসর ঘরে যেই না বলতে যাবো যে আমি তোমাকে স্ত্রীর মর্যাদা দিতে পারবো না, অমনি সে বলে উঠলো বিয়েতে নাকি তার মত ছিলো না৷ আমিও বালিশটা নিয়ে সোফায় এসে শুয়ে পরলাম৷
.
মেয়েটির ডায়েরি:
আজ প্রচণ্ড বৃষ্টি হয়েছিল৷ বৃষ্টি হলেই না ভিজলে আমার ভালোলাগে না৷ তাই আজও ভিজছিলাম৷ তখনি সে এসে বললো বৃষ্টিতে যেন না ভিজি৷ কারণ জ্বর হলে কে দেখবে৷ এই জন্যই বিয়ে করতে চাইনি৷
.
ছেলেটির ডায়েরি:
বিকেলে বৃষ্টি হচ্ছিল৷ বাসায় এসে দেখি সে (বউ) ঘরে নেই৷ ছাদে গিয়ে দেখি বৃষ্টিতে ভিজছে৷ অপরূপ লাগছিল তাকে দেখতে৷ এতো বড় একটি মেয়ে বাচ্চাদের মতো কী সুন্দর করে বৃষ্টিতে ভিজছে৷ আমি অপলক তাকিয়ে রইলাম৷ একটু পরে আমার দিকে চোখ পড়তেই তাকে বৃষ্টিতে ভিজতে বারণ করে চলে এলাম৷
.
মেয়েটির ডায়েরি:
আজকে আমার প্রচণ্ড জ্বর এসেছে৷ একটু আগে সে (স্বামী) এসে ঝাড়ি দিয়ে গেলো আমাকে৷ তারপর নিজের হাতে খাবার আর ঔষধ খাইয়ে দিয়ে চলে গেলো৷ রাতেও খুব জ্বর ছিলো৷ শীতে খুব কাঁপছিলাম৷ তখনি সে এসে আমার গায়ে চাদর দিয়ে গেলো৷ ভালোই সেবাযত্ন করেছে আমার৷
.
ছেলেটির ডায়েরি:
বৃষ্টিতে ভিজে জ্বর বাঁধিয়েছে সে ৷
কী আর করা! সেবা যত্ন করতে হলো আমাকে৷ রাতে মনে হয় ঠাণ্ডা একটু বেশী লেগেছিলো তার ৷ গুটিসুটি মেরে ঘুমিয়ে ছিলো৷ দেখে খুব মায়া লাগছিলো আমার৷ তাই চাদরটা গায়ে দিয়ে দিলাম৷
.
মেয়েটির ডায়েরি:
আজকে অনেকটা সুস্থ্য আমি৷ সম্পূর্ণ ক্রেডিট তার (স্বামী)৷ তাই ভাবলাম তার জন্য নিজের হাতে কিছু রান্না করি৷ মায়ের কাছ থেকে তার পছন্দের কিছু খাবারের নাম জেনে সেগুলো রান্না করলাম৷ রান্না কেমন হলো বুঝলাম না৷ কারণ খাওয়ার পর তার কোনো রিঅ্যাকশান দেখলাম না৷
.
ছেলেটির ডায়েরি:
সারাদিন কোন কাজে মন বসেনি আমার৷ গতরাতের ঠাণ্ডায় গুটি মেরে ঘুমিয়ে থাকা মুখটির কথা বার বার মনে পড়ছে৷ আজকে আমার জন্য আমার পছন্দের খাবারগুলো নিজ হাতে রান্না করেছিলো৷ খারাপ হয়নি৷ আবার অতটা ভালোও হয়নি৷
.
মেয়েটির ডায়েরি:
আজকে আমার জন্য সে (স্বামী) এক জোড়া পায়েল নিয়ে এসেছে গাধাটা ৷ পায়েল গুলো এনে আমার হাতে দিলো ৷ পায়ে পড়িয়ে দিলে কি হতো ৷
.
ছেলেটির ডায়েরি:
আজকে তাকে পায়েল গিফ্ট করলাম ৷ তার পা গুলো খালি খালি লাগছিলো ৷ পায়েল গুলো পড়িয়ে দেয়ার ইচ্ছা ছিলো ৷ কিন্তু পরে ভাবলাম কিনা কি মনে করে ৷
.
মেয়েটির ডায়েরি:
আমি আজ খুব খুশি ৷ কারন সে (স্বামী) আজ আমাকে প্রপোজ করেছে ৷ জীবনে অনেক ছেলেই প্রপোজ করেছে আমাকে ৷ সবাইকে ফিরিয়ে দিয়েছি ৷ ভাবছি এই প্রপোজটা গ্রহন করবো ৷
.
ছেলেটার ডায়েরি:
আমি মনে হয় তার (স্ত্রী) প্রেমে পড়েছি ৷ সারাদিন কোন কাজে মন বসাতে পারিনা ৷ তার কথাই বারবার মনে পরে ৷ জীবনে কোনো মেয়েকে প্রপোজ করি নাই ৷ তাই আজ একগুচ্ছ গোলাপ দিয়ে তাকে প্রপোজটা করেই ফেললাম ৷ কিন্তু সে বললো ভেবেচিন্তে উত্তর দেবে ৷
.
কয়েকদিন পর: 

এখন অার তারা দুইটি ডায়েরিতে নিজের গল্প লিখে না ৷ এখন তারা একটি ডায়েরিতে নিজেদের গল্প লিখে l

(সংগৃহীত)

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

লেখাটি ২,৯১৪ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.