নগরের অভ্যস্ত জীবনে চলছে ঢিলেঢালা হরতাল

hortalউইমেন চ্যাপ্টার (১৮ জুলাই): রাজধানীতে বড় ধরনের কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই চলছে জামায়াতে ইসলামীর ডাকে টানা চতুর্থদিনের হরতাল। একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামির সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুজাহিদের ফাঁসির রায়ের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা এই হরতাল ডাকে তার দল জামায়াত।

এর আগে একাত্তরে জামায়াতের আমির গোলাম আযমের রায়কে কেন্দ্র করেও সোমবার হরতাল ডেকেছিল সংগঠনটি। রায়ে ৯০ বছরের কারাদণ্ড হওয়ায় তার প্রতিবাদে পরদিনও হরতাল ডাকা হয়। বুধবার আবার মুজাহিদের রায়কে কেন্দ্র করে এবং বৃহস্পতিবার রায়ের বিরোধিতা করে টানা চতুর্থদিনের মতো হরতাল পালন করছে জামায়াতে ইসলামি।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে গত তিন দিনের তুলনায় বেশি যানবাহন চলতে দেখা গেছে রাজধানীর সড়কগুলোতে। বেশ অধিক সংখ্যায় ব্যক্তিগত গাড়িও চোখে পড়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হরতালে রেল ও লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও গাবতলী, মহাখালী ও সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে সকালে দূর পাল্লার বাস ছেড়ে যায়নি।

জামায়াতের সাবেক আমির এবং একাত্তরের যুদ্ধাপরাধের ‘মূল হোতা’ গোলাম আযমের রায়কে কেন্দ্র করে গত সোম ও মঙ্গলবার হরতাল করে বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতাকারী দলটি। আর সেক্রেটারি জেনারেল মুজাহিদের রায়ের দিন বুধবার হরতাল করার পর মৃত্যুদণ্ডের আদেশ প্রত্যাখ্যান করে বৃহস্পতিবারও একই কর্মসূচি দেয় জামায়াত।

দলটির ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান এক বিবৃতিতে বলেন, জামায়াতকে ‘নেতৃত্বশূন্য’ করার জন্য ‘মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক’ মামলায় ‘সরকার নির্দেশিত’ ছকে মুজাহিদের ফাঁসির রায় দিয়েছে ট্রাইব্যুনাল।

নারায়ণগঞ্জে একটি কাভার্ড ভ্যানে আগুন দিয়েছে জামায়াত-শিবির কর্মীরা। বৃহস্পতিবার ভোরে ফতুল্লার কাশিপুরে একটি সিমেন্ট কোম্পানির কাভার্ড ভ্যানে আগুন দেয় তারা। এ সময় আরো বেশ কয়েকটি যানবাহনে ভাংচুর চালায় জামায়াত কর্মীরা। জামায়াত-শিবির কর্মীরা এসময় আরো চার-পাঁচটি অটোরিক্সা ভাংচুর করে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই তারা পালিয়ে যায়।

হরতালে নাশকতার অভিযোগে সিলেটের বিভিন্ন এলাকা থেকে ইসলামী ছাত্রশিবিরের ২৪ কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
জামায়াতে ইসলামীর গত তিন দিনের হরতালে গাড়ি ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও নানা নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিলো এই শিবিরকর্মীরা। এদের বেশ কয়েক জন পুলিশের ওপর হামলা ও নাশকতার অভিযোগে দায়ের করা মামলার আসামি।

চাঁদপুরের বিভিন্ন স্থান থেকে পিকেটিংয়ের প্রস্তুতিকালে শিবিরের চার কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার ভোরে চাঁদপুরের কচুয়া, শাহরাস্তি, মতলব দক্ষিণ ও হাইমচর থেকে তাদের আটক করা হয়।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.