হে ভালো পুরুষেরা, আপনাদের লজ্জা হয় না?

তামান্না কদর:

“কুমিল্লায় দুই বোনকে দলবেঁধে ধর্ষণ। এক বোন ক্লাস সিক্সে ও অপর বোন ক্লাস থ্রিতে পড়ে। নোয়াখালীর হাতিয়ায় নিঝুম দ্বীপে ঈদের দিন বেড়াতে যাওয়ার কথা ব’লে দুই শিক্ষার্থী‌কে হোটেলে নি‌য়ে গিয়ে ধর্ষণ। একজন স্কুলে ক্লাস টেনে ও অন্যজন মাদ্রাসায় ক্লাস এইটে পড়ে”।

শিশু থেকে বৃদ্ধ কেউ বাদ যাচ্ছে না। ধর্ষণ অ‌বিরাম চল‌ছেই। কে‌নো চল‌ছে? কারণ মে‌য়েরা ঘর থে‌কে বের হ‌চ্ছে, তা‌দের ডানা গজি‌য়ে‌ছে (!), মানু‌ষের জীবন যাপন করার স্বপ্ন দেখ‌ছে তারা, তারা মানু‌ষের মৌ‌লিক অ‌ধিকার স্বাধীনতার স্বাদ পে‌তে চায়, ব‌ড় বে‌শি বে‌ড়েছে নারীকুল! এ‌দের দমন কর‌তে না পার‌লে পুরুষকু‌লের একচ্ছত্র আ‌ধিপত্য নষ্ট হ‌য়ে যাচ্ছে, সে‌টি কি হ‌তে দেয়া যায়? কুশী‌লেরা তাই বে‌ছে নি‌য়ে‌ছে নারীর শারী‌রিক কুৎসা রটনা, যৌন হয়রা‌নি এবং ধর্ষণ। সুশীল পুরুষরা বে‌ছে নি‌য়ে‌ছে নি‌রবতার ভূ‌মিকা। রাষ্ট্র এক বিরাট সুশীল পুরু‌ষের ভূ‌মিকায় আ‌ছে। নারীর প্র‌তি স‌হিংসতা ব‌ন্ধে তার বু‌লি থাক‌লেও কার্যকর কো‌নো পদক্ষেপ নেই।

সুশীল নারী অ‌নেক‌দিন তো আত্মরক্ষার ভ‌ঙ্গি‌তে পথ চ‌লে নি‌জে‌কে রক্ষা ক‌রে‌ছো, এবার আক্রমণাত্মক ভ‌ঙ্গি‌তে পথ চ‌লো। যেই দেখ‌বে তোমার ওপর অযা‌চিত আক্রমণ হ‌তে চ‌লে‌ছে অম‌নি রক্ষাণাত্মক না হ‌য়ে আক্রমণাত্মক হও। মে‌য়ে‌দের মাগণ, আপনারা নিশ্চয়ই এ সমাজের কানা, ক‌ুৎ‌সিত গলি কিছুটা হ‌লেও চি‌নে‌ছেন।

আপনার কন্যা‌টিকে ন‌রোমশ‌রোম লজ্জাবতী মুখ বোজা প‌রের ঘ‌রের রাধুঁনি হি‌সে‌বে গ‌ড়ে না তু‌লে এই অসভ্য পুরুষতা‌ন্ত্রিক সমা‌জের সা‌থে ফাইট দি‌য়ে পথ চলবার মতো সাহসী হ‌য়ে গ‌ড়ে উঠ‌তে সহ‌যো‌গিতা করুন। পুরুষকে আমরা য‌তোই বাপ, ভাই, ছে‌লে, বন্ধু হি‌সে‌বে সহ‌যোগী ভাব‌তে চেষ্টা ক‌রি না কে‌নো, আস‌লে তারা নারীকে তাদের চিরশত্রু হি‌সে‌বেই সণাক্ত করে রেখে‌ছে, এ‌টি সত্য এবং চরম সত্য। য‌দিও এরা প‌রিপূরক( আস‌লে নারীর পূর্ণাঙ্গ মানুষ হি‌সে‌বে প্র‌তিষ্ঠা পাবার অন্তরায়) ত‌ত্ত্বের কথা ব‌লে, মু‌খে সুশীলতা নি‌য়ে ব‌লে যে ‘নারী পুরুষ পরস্পর শত্রু নয়, একে অপ‌রের সহ‌যো‌গী’ কিন্তু ভেত‌রে ভেত‌রে পোষণ ক‌রে চরম বি‌দ্বেষ, যা সে পায় তার পূর্ব পুরুষ থে‌কে।

ধর্ষণ হয়। ধর্ষ‌কের বিচার হয় না। ধর্ষ‌ণের শিকার নারীর পোশাক, অঙ্গভ‌ঙ্গি, চলা‌ফেরা নি‌য়ে আ‌লোচনায় ব‌সে সুশীল সমাজ, তারা চুল‌চেরা বি‌শ্লেষণ করে ধর্ষণ‌টি সংঘ‌টিত হওয়া উ‌চিত কী উ‌চিত ছি‌লো না। বাহ্ সুশীল সমাজ, বাহ!

‘ধর্ষণ নি‌য়ে এতো হাউকাউ করার কী আছে, অন্য আর কটা শারী‌রিক আক্রম‌ণের মতোই এ‌টিও এক‌টি আক্রমণ’ আপনার ধর্ষ‌ণের শিকার মে‌য়ে‌কে এ‌টি বোঝান- এ‌টি ব‌লে ধর্ষণ অপরাধ‌কে হালকা করার প্রয়াস চল‌ছে কি? অবশ্যই আমরা ধর্ষ‌ণের শিকার মেয়ে‌কে মান‌সিক সহায়তাসহ সকল ধর‌নের সহায়তা দি‌বো।

ত‌বে এ‌টিই চূড়ান্ত সত্য যে, ধর্ষণ আর কটা শারী‌রিক আক্রম‌ণের ম‌তো নয়। তাই এ‌টি নি‌য়ে আমা‌দের হাউকাউ করার আ‌ছে। আবার অ‌নে‌কে ব‌লে, ‘ধর্ষণ অ‌নিবার্য হ‌লে তা উপ‌ভোগ করা উ‌চিত’; মূলত এ‌টি পুরু‌ষেরাই বলে থাকে। আক্রমণ কীভা‌বে উপ‌ভে‌াগ ক‌রে মানুষ?

এখা‌নেই স্পষ্ট যারা অ‌নিবার্য ধর্ষণ উপ‌ভোগ কর‌তে ব‌লে তারা মান‌সিকভা‌বে ক‌তোটা ইতর। আ‌মি তো দেখি কুশীল পুরুষ থে‌কে সুশীল পুরুষরাই ভয়ঙ্কর এখন, তা‌দের ভয়ঙ্করতা হ‌লো নি‌রব থাকা, ধর্ষ‌ণের বৈধতা খোঁজা। নিজে‌দের ভা‌লো দা‌বি করা পুরু‌ষেরা য‌দি স‌ত্যিই ভা‌লো হ‌তো, ধর্ষ‌ণের বিরুদ্ধে সোচ্চার হ‌তো ধর্ষণ ক‌মে আস‌তো নিশ্চয়ই।

ভা‌লো পুরুষগণ,

খারাপ প‌ুরুষ তথা ধর্ষক, যৌন হয়রা‌নিকারক মুখ দে‌খে চিনবার উপায় কী, বলে দি‌বেন? আমরা যখন ঘর থে‌কে বের হই তখন সকল পুরুষ‌কে সম্ভাব্য ধর্ষক অথবা যৌন হয়রা‌নিকারক ধ‌রে নি‌য়েই কিন্তু পথ চ‌লি কারণ আমরা স‌ত্যিই ম‌ুখ দে‌খে বুঝ‌তে পা‌রি না কে খারাপ। এমন‌কি অ‌নেক সময় কা‌ছের পুরুষ মানুষ, পুরুষ বন্ধুও সু‌যোগ পে‌লে ধর্ষক, হন্তারক হ‌য়ে উ‌ঠে।

সারা বছর ধ‌রে চল‌তে থা‌কে ধর্ষণ আ‌মোদ। আমরা কিছু বল‌তে গেলেই বলেন, ‘সব পুরুষ এক না, আপনার বাপ ভাইও কি খারাপ?’ বোঝা‌তে পা‌রি না ফাঁ‌কে ফোঁক‌রে একটা-দুটা ভা‌লো পুরুষ দিয়ে বাঙলার পুরুষ যাচাই কর‌তে পার‌ছি না। ও আপনারা তো আবার ধর্ষ‌কের দোষ খুঁ‌জে পান না, মে‌য়ে‌টির পোশা‌কে, চলা‌ফেরায় আপনা‌দের নজর থা‌কে।

তা ভা‌লো পুরু‌ষেরা, ধর্ষণ রো‌ধে আপনারা কী কর‌লেন? এক কাজ করুন, ১২ টা মা‌সের একটা মাস ধর্ষণ মাস হি‌সে‌বে ঘোষণা করে দিন। আমরা নিজেরাসহ আমা‌দের মে‌য়েগু‌লি‌কে এই একমাস ঘরে বন্দী রে‌খে হোক, যেভা‌বেই হোক ধর্ষণ থে‌কে মুক্ত রাখ‌বো। আপনারা তো আর শি‌শ্নের আস্ফালন কখ‌নোই বাদ দি‌তে পারবেন না, পা‌ছে আপনা‌দের পৌরুষ বিলীন হয়।

‌হে ভা‌লো পুরুষ, মানুষ হিসে‌বে আপনা‌দের সামান্যতম লজ্জাও হয় না?

শেয়ার করুন:
  • 239
  •  
  •  
  •  
  •  
    239
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.