আমি কেন ঐশীর ফাঁসি চাই না

0

সালমা লুনা:

আর কয়েকঘন্টা পরেই ঐশীর আপিলের রায় হবে। হয়তো সাজা বহাল থাকবে নয়তো আজীবন কারাবন্দী কিংবা খালাস।ঐশীর বাবা মা বেঁচে নেই বলে তারা কোন অভিজ্ঞতা জানাতে পারবে না।
কিন্তু ঐশী বেঁচে আছে, সে তার অভিজ্ঞতা জানাতে পারবে।
কী সেই দুঃসহ যন্ত্রণা যা তাকে হন্তারক করেছে। সকলের জানা দরকার বৈকি !

জানুক এই প্রায় ক্ষয়ে ধ্বসে পড়া সমাজ । জানুক সকল বাবা মা – অভিভাবক।

এই ঐশী যদি আমার মেয়ে হতো!

আমার বড় সন্তানের বয়স আঠারো বছর আট মাস। ছোটোটি তের বছর নয় মাস। বড় সন্তানটি ছেলে, ছোটোটি মেয়ে। আমি এবং তাদের বাবা তাদের দুজনকেই প্রাণের চেয়ে বেশি ভালোবাসি। আমি দৃঢ়ভাবেই জানি এবং নিশ্চিত করেই মানি তারাও আমাদের ভালোবাসে। এই জানায় এতটুকু খাঁদ নেই। এই দেশের প্রতিটা বাবা মা-ই কি এভাবেই ভাবে না? এটি জেনেই প্রতিদিন সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে তাদের হৃদয় মায়ায় আর্দ্র হয়না? সন্তানের মঙ্গল কামনায় সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনায় নত হয়না? পৃথিবীর সব সুখ আর আনন্দের উপকরণ দিয়ে সন্তানের ঝুলি ভরে দিতে ব্যস্ত হয়ে উঠে না?

ঐশীর বাবা মা কি তার ব্যতিক্রম ছিলো?

ঐশী কি এই চিরন্তন গণ্ডির বাইরের কেউ ছিলো?

আমি অনেক ভেবেছি, ঐশীর ফাঁসি কি চাই?

ঐশী যদি আমার সন্তান হতো, আর মৃত আমার আত্মাকে যদি এই প্রশ্ন করা হতো আমি কী উত্তর দিতাম! সেই প্রেমিক প্রেমিকার গল্পটা সবাই জানে। সেই যে, প্রেমিকাকে খুশি করতে মায়ের হৃদপিণ্ড নিয়ে পুত্র ছুটতে গিয়ে পড়ে গেলে হৃদপিণ্ড বলে উঠেছিলো- বাবা ব্যাথা পেলি? এ নিছক বানানো গল্প নয়। আপত্যস্নেহের এক করুণ উদাহরণ হিসেবে রচিত এই গল্প । তাছাড়া স্নেহ সবসময়ই নিম্নগামী – এই অতি প্রাচীন বাণীই বা মিথ্যা হয় কী করে!
এ সবই অবশ্য আবেগের কথা।

আইন, যুক্তি, সভ্যতা, শিক্ষা সমাজ রাষ্ট্র ব্যবস্থা এই আবেগ সমর্থন করে না। তারা ঐশীর মধ্যে এক সাধারণ অপরাধীকেই খুঁজে পায়। তারা সেই অপরাধীটির কঠিনতম শাস্তি চায়। এইরকম অপরাধী যেন আর একটিও না জন্মাতে পারে তার নিশ্চয়তা চায়।

আমাদেরই কারো কারো সন্তানদের মাঝে যে ঘুমন্ত ঐশী আছে সে যেন আর জাগতে না পারে তার স্থায়ী বন্দোবস্ত করতে চায়।
আর কোন ঐশীর যেন জন্মই না হয় সেজন্য যুগান্তকারী দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চায়।

কিন্তু ঐশীর জন্ম কি হন্তারক হিসেবেই হয়েছিলো? ঐশী কি আর দশটা স্বাভাবিক মানুষের বাচ্চার মতোই ছিলো না?
তাহলে ঐশী এমন হলো কীভাবে?

ঐশীর এইরকম একটা জঘন্য উদাহরণ যোগ্য “ঐশী” হয়ে উঠার পেছনে তাঁর বাবা মা, আত্মীয় স্বজন, এই সমাজ এমনকি এই রাষ্ট্রেরও কি দায় নেই ?

এসব কথা আমরা বহুবার বহুভাবে উচ্চারিত হতে শুনেছি । এবং কথাগুলো বারবার আলোচনায় আনতেই হবে যে !
তা না হলে দেবশিশু হয়ে জন্ম নেয়া বাচ্চাগুলো সবাই যে ঐশী হয়ে যাবে একসময়।

সবচেয়ে বেশী দায় এই অথর্ব রাষ্ট্রের। যে রাষ্ট্র এক মাদক সম্রাটকে দুদিনের বেশী আটকে রাখতে পারে না অথচ মাদক দিয়ে ঐশীদের তৈরি করার সমস্ত পথ খোলা রাখে। সেই মাদক সম্রাট নির্বাচন নির্বাচন খেলায় জনপ্রতিনিধি হয়ে মহাসুখে জাতীয় পতাকা উড়িয়ে মাদক ব্যবসা করে যায় ।

যে রাষ্ট্র একটি হতাশা বিহীন সুন্দর ও নিরাপদ সমাজ দিতে পারে না যেখানে ঐশীরা সুস্থ পরিবেশে বেড়ে উঠতে পারে ।

রাষ্ট্রের অপরিণত অযোগ্য সুযোগসন্ধানী ক্রীড়নকদের তৈরি আইনকানুনে যে অবৈধ দুর্নীতিবাজ আর অসৎ সমাজ সৃষ্টি হয়, সেই সমাজে ঐশীদের বাবা মায়েরা গা ভাসিয়ে দিয়ে ঐশীদের পৃথিবীর আলো দেখায় এবং বেড়ে উঠার সকল আয়োজন করে রাখে । ঐশীদের অপরাধী হবার সকল পথ খোলা রাখে ।

সেই রাষ্ট্র অপরাধী হলেও তাকে দণ্ড দেয়া যায় না। দণ্ড পায় ঐশীরা। বাঘা বাঘা অপরাধী দণ্ড পায়না। পেলেও সর্বশেষে ক্ষমতার সর্বোচ্চ ব্যবহার করে তারাও মুক্ত বাতাসে নিঃশ্বাস নিতে পারে। ঐশীরা ক্ষমা পায়না।

এসকল ঘটনার কোনো ব্যতিক্রম কখনো ঘটে না।
অথচ এখন সময় হয়েছে ব্যতিক্রমী কিছু ঘটবার ।
তা না হলে ঐশীতে ভরে উঠবে দেশ ।
এই ব্যতিক্রমের জন্যই ঐশীর বেঁচে থাকা দরকার ।

আমি কি চাই ?

আমি এইসব কারণেই ঐশীর ফাঁসি চাই না।
ঐশীর বাবা মা বেঁচে নেই বলে তারা কোন অভিজ্ঞতা জানাতে পারবে না। আমাদের শেখাতে পারবে না , গলা তুলে জানাতে পারবে না – কোন ভুলে কোন সে পিছল পথে চলতে চলতে তারা তাদের দেবশিশুটিকে এই খুনে “ঐশী” করে তুলেছিলেন ।

কিন্তু ঐশী বেঁচে আছে, সেই পারবে। কী সেই দুঃসহ যন্ত্রণা যা তাকে হন্তারক করেছে – সে অবশ্যই জানাতে পারবে । সকল মানুষ জানুক । জানুক সকল বাবা মাও। এই জানার দরকার আছে।

তাই আমি চাই ঐশী বেঁচে থাকুক। বেঁচে থেকে স্বাভাবিক জীবন নিয়ে অন্য যারা ঐশী হতে চায় তাদের সাথে কথা বলুক, বোঝাক একজন ঐশী কোন পথে হেঁটে গিয়েছে যা তাকে নরকের প্রান্তে হাজির করেছে।

আমি চাই সে একদিন একটি পরিবার তৈরি করুক আর অন্তত একটি সন্তানের মা হোক যাতে সে পরিবার সন্তান এবং মা কেমন হয় সেটি বুঝুক এবং বুঝিয়ে যাক পৃথিবীকে।

ঐশীর জীবন একটি ব্যতিক্রম হোক।

যে ব্যতিক্রম দেখে এদেশের আর কোন দেবদূত ঐশীর জীবন না বেছে নিক।

তার আগে আমি ঐশীর ফাঁসি তো দূর, স্বাভাবিক মৃত্যুও চাইনা।

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

লেখাটি ৫,৬৪৩ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.