অপু-শাকিবের সংসারের আগুনে মিডিয়ার আলুপোড়া খাওয়া

0

শাশ্বতী বিপ্লব:

স্ত্রী হিসেবে নিজের এবং সন্তানের সামাজিক স্বীকৃতি চেয়ে অপু বিশ্বাসের মায়া কান্না আর সেটা নিয়ে মিডিয়ার শালিসী আয়োজন আমার অসহ্য লাগছে। অপু বিশ্বাস কি অথর্ব? অসহায়? অযোগ্য? কক্ষনো নয়। তবে? সে দ্বারে দ্বারে স্বীকৃতি খুঁজছে কেন? কে তাকে স্বীকৃতি এনে দেবে? মিডিয়ার লোকজন? যে সাংবাদিক ভাইরা তাকে “দিদি, আপনি তো ছোট হয়ে গেলেন” বলে সাঁকো নাড়িয়ে দিয়ে এখন গ্যালারিতে বসে বসে মজা দেখছে, তারা? নাকি ফেসবুকীয় দর্শককুল?

অপু বিশ্বাসরা কবে নিজের উপর আস্থা রাখতে শিখবে? কবে আত্মবিশ্বাসী হবে, নিজেকে সম্মান করতে শিখবে? কবে কোন প্রতারকের সামাজিক স্বীকৃতির প্রয়োজনকে অস্বীকার করতে শিখবে? কবে মিডিয়া বা নকল শুভাকাঙ্খীর মতলব বুঝতে পারবে? অপু বিশ্বাস বোকার মতো মিডিয়ার ফাঁদে পা দিয়েছেন।

শাকিব খানের আচরণে তিনি কষ্ট পেয়েছেন, ঠিক আছে। শাকিবের মুখোশ খুলে দিতে চেয়েছেন, সেটাও ঠিক আছে। কিন্তু তার জন্য “আমি শুধু একটু সম্মান চাই”,  “আমিওতো একটা মেয়েমানুষ”, “ওরোতো মা, বোন আছে” ব্লা ব্লা ব্লা বলে নিজেকে একজন দূর্বল, অসহায় বিচারপ্রার্থী হিসেবে উপস্থাপন করাটা ঠিক নাই। পুরোটাই একটি অপ্রয়োজনীয়, বিরক্তিকর উদ্যোগ। শাকিব খানের মুখোশ খুলে দেয়ার জন্য একটা নিউজই যথেষ্ট ছিল।

অপু বিশ্বাসের সাক্ষাৎকার দেখে আমার মনে হয়েছে, তিনি সবাইকে তাদের সম্পর্কের বিষয়টা জানাতে চাওয়ার মুখ্য কারণই হলো, কোন এক উঠতি নায়িকাকে নিয়ে তার অপমান বোধ এবং অন্য কোন মেয়ে (নায়িকা) যেনো শাকিব খানের সাথে সম্পর্কে না জড়ায় সেটা আটকানো। আরো মনে হয়েছে, সন্তান নয়, তার প্রতি শাকিব খানের অবহেলা/ অনাগ্রহের জবাব দিতে চেয়েছেন, প্রতিকার চাইছেন। এটা খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু, এইসব মিডিয়া শালিস করে শেষ রক্ষা হবে তো অপু বিশ্বাস?

শাকিব খান নিজে যদি আপনার প্রতি কমিটেড ফিল না করেন, সম্পর্কের ব্যাপারে যদি তিনি সৎ না হন, তবে এরকম হাজার প্রচারেও কোন লাভ হবে না। লাভ হবে না আরো কয়েক গণ্ডা সন্তান থাকলেও। এমনকি নায়ক হিসেবেও তার গ্রহণযোগ্যতা কমবে না একটুও। দর্শকের মানও আপনাকে বুঝতে হবে অপু বিশ্বাস। সেইসাথে বুঝতে হবে, আপনাদের সম্পর্কের টানাপোড়েনকে পুঁজি করে কতিপয় সাংবাদিকের আপনাকে উসকে দেয়ার পিছনের ব্যবসায়িক হিসাব।

নিজের জীবনের নিয়ন্ত্রণ ও সিদ্ধান্ত নিজে নিন অপু বিশ্বাস, মিডিয়া বা সাংবাদিকদের উপর ছেড়ে দিয়েন না। আপনার সন্তানের জন্য আপনার নিজের পরিচয়ই যথেষ্ট। 
আইনী স্বীকৃতি তো তার আছেই, তথাকথিত সামাজিক স্বীকৃতির (বলা ভালো, মিডিয়ার স্বীকৃতি) জন্য এতো মায়াকান্নার কি দরকার?  আপনার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে মুখরোচক আলোচনায় মিডিয়ার শুধুই ব্যবসা হবে, আপনার তাতে কোন লাভ হবে না।

মনে রাখবেন, আপনি যে কোন এলেবেলে মানুষ নন, নিজের কর্মক্ষেত্রে আপনি সুপ্রতিষ্ঠিত। শাকিব খানের স্ত্রী বা তার সন্তানের মায়ের পরিচয়ের বাইরেও আপনার একটি স্বতন্ত্র পরিচয় আছে। ক্যারিয়ারের এতোটা উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েও শুধুমাত্র নারী হওয়ার কারণে আপনারা যখন নিজেকে এইরকম অসহায় হিসেবে উপস্থাপন করেন, তখন শাকিব খান নয়, আপনার/ আপনাদের উপরই আমার বেশি রাগ হয়।

এসবকে ঝেড়ে ফেলুন এবং নিজের কর্মক্ষেত্রে ফিরে আসুন । আপনার প্রতি অন্যায় হয়ে থাকলে প্রয়োজনে আইনী সহায়তা নিন, মিডিয়ায় এসে কাঁদবেন না প্লীজ। বরং একজন দৃঢ় মনোবলের মানুষ হসেবে নিজেকে তুলে ধরুন। ভালো উদাহরণ তৈরি করুন। অন্য মেয়েরাও আপনাকে দেখে অনুপ্রাণিত হবে। আপনি চাইলেই কিন্তু সেটা পারেন অপু বিশ্বাস।

আপনার জন্য শুভকামনা রইলো।

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 1.7K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1.7K
    Shares

লেখাটি ১০,৬৬৬ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.