সমাজ মেয়েদের ‘না’ শুনতে ভালবাসে না

0

রেজভিনা পারভীন:

যখন কোনো পরিচিত বোন, বন্ধু বা সহকর্মী তার পারিবারিক অশান্তি বা নির্যাতনের কথা, মনের কষ্টের কথা বলে তখন বার বার মনে একটা প্রশ্নই আসে কেন জোড়াতালি দিয়ে সম্পর্কটা টিকিয়ে রেখেছে? কেন ছেড়ে চলে এসে নিজের মতো করে জীবনটা গুছিয়ে নেয় না? অনেকে না হয় আর্থিক কারণে সাহস করে না, আবার অনেককে দেখি আর্থিক সামর্থ্য থাকার পরও সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। কিন্তু হিসেবগুলো আসলে এতো সহজ না হয়তো।

রেজভিনা পারভীন

যখন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক রুমানা মঞ্জুরকে তার স্বামী হাসান সাঈদ সুমনের নির্যাতনে সারা জীবনের জন্য দু’টো চোখ হারাতে হয়েছিল তখন বার বার এই প্রশ্ন মনের কোনায় উঁকি দিয়েছিল। কিন্তু উত্তর খুঁজে পাইনি। আবার পালিয়ে বাঁচার চেষ্টা করতে গিয়ে নিজের জীবন দিয়ে দিল যমুনা ব্যাংক কর্মকর্তা আরিফুন্নেছা আরিফা। জোড়াতালির সংসার করতে না চাওয়ায় এই সাজা। পত্রিকা পড়ে জানলাম আরিফার সাবেক স্বামী ফখরুল ডিভোর্সের ছয় মাসের মাথায়ই আরিফার উপর চড়াও হয় এবং তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে তার স্বপ্নময় পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে বাধ্য করে! আরিফার বলিষ্ঠ সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেনি ফখরুল। জোড়াতালির সংসার করবেন, কখনও রুমানা হবেন, আর যদি সেখান থেকে বেরিয়ে আসেন, তাহলে আরিফা হবেন, প্রেমের প্রস্তাবে না করবেন তাহলে খাদিজা হবেন, এইসব হাসান সাঈদ সুমন, বদরুল, ফখরুল এদের ভয়ে আমরা কী করবো? কোন পথটা বেছে নিব? কেমন যেন তালগোল লেগে যায়!

কেমন করে যেন আমাদের সমাজটা মেয়েদেরকে ‘না’ করতে ভালবাসে, কিন্তু মেয়েদের ‘না’ শুনতে ভালবাসে না। কী করা উচিত ছিল আরিফার? যদি সেখান থেকে বের হয়ে না এসে ফখরুলের হাতে দিনের পর দিন একটু একটু করে মার খেতো, তবে কি সে রেহাই পেত?

আমার চারপাশে অনেকে আছে যারা এমন ধুঁকে ধুঁকে মার খায় আর সংসার করে, তাদের অসহায় অবস্থা আমরা দেখি আর মেয়েটিকে বলি, “একটু মানিয়ে চলো, সংসারটা ভেঙে ফেলো না, তোমার সন্তান আছে তাদের মুখের দিকে ঐ কষ্টটুকু সহ্য করো। সংসার ভাঙা সহজ, গড়া কঠিন। তুমি ওকে ছেড়ে দিলেও তোমাকে এবং তোমার পরিবারকে ভালো থাকতে দিবে না, একটু মানিয়ে চললেই ঝামেলা হয় না। আমরা কতকিছু ম্যানেজ করে সংসার করে এ পর্যন্ত এসেছি।”

আমাদের সব মেয়েদেরই এই কথাগুলো মগজে ঢুকিয়ে ছোট থেকে বড় করা হয়। আর আমরা মেয়েরা সেই শিক্ষার বোঝা মাথায় বহন করে প্রতিনিয়ত নিজেকে হারিয়ে ফেলি সবকিছুর মাঝে। কোন মেয়েকে তার কষ্টের কথা শুনে মানিয়ে নেয়ার পরামর্শ দেওয়া আর নিরবে দাঁড়িয়ে কারো উপর নির্যাতনের ভিডিও করা আমার কাছে এক মনে হয়।

যার উপর নির্যাতন ঘটে কেবলমাত্র সেই বোঝে সে কতটুকু কষ্ট করছে বা সে কতটুকু সহ্য করতে পারবে। নির্যাতন আর মানসিক কষ্ট সহ্য করতে না পেরে কেউ কেউ আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছে, আবার কেউ কেউ নির্যাতনকারির নির্যাতনে জীবন দিচ্ছে। সামাজিক চাপ থেকে মেয়েগুলোকে একটু রেহাই দেওয়া খুব প্রয়োজন। মেয়েটিকে তার নিজের সিদ্ধান্তটা নিজেকেই নিতে দিন, অযথা সমাজ কী ভাববে এই জাতীয় বিষয়গুলো তার মাথায় না দিয়ে মেয়েটিকে আশ্বস্ত করা খুব জরুরি যে, সে যদি ফিরে আসে তবে তাকে তার পরিবার ভুল বুঝবে না, পাশে থাকবে। আগে তো মেয়েগুলোকে বাচঁতে দিন, তারপর না হয় সমাজ কী ভাববে, সংসারের কী হবে, ভাবা যাবে।

আমাদের এই সময়কার মায়েরা কিন্তু চাইলে অনেক বড় একটা ভূমিকা পালন করতে পারেন ইতিবাচক পরিবর্তনে। আমাদের মেয়েদের মগজে যেভাবে পরিবার থেকে ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছে মানিয়ে নিতে, ভাল মেয়ে হয়ে বড় হতে, তেমনি আপনি আপনার আদরের ছেলেকে শেখান কী করে মেয়েদের মানুষ ভাবতে হয়, মেয়েদের মতামতকে গুরুত্ব দিতে হয়, মেয়েদের প্রতিপক্ষ না ভেবে বন্ধু ভাবতে হয়।

কাজটা কিন্তু খুব কঠিন না, একটু ধৈর্য ধরে ছেলেকে মানুষ করুন, এতে লাভ আপনারই, কারণ এতো কষ্টের সন্তানকে আপনি নিশ্চয়ই আদর্শ মানুষ হিসেবে দেখতে চান। নিশ্চয়ই হাসান সাঈদ সুমন, বদরুল, ফখরুল হিসেবে দেখতে চান না। রুমানা, খাদিজা, আরিফা এদের নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে, নিজের ক্ষমতার বেড়াজালে আটকাতে গিয়ে কিন্তু তারাই কারাগারে বন্দী জীবন বেছে নিয়েছে। এই ভয়াবহ পরিণতি নিশ্চই এই সমাজের কাম্য নয়।

কিছুদিন আগে আমার এক বন্ধু আমার একটা লেখা পড়ে বলেছিল চারপাশের পজিটিভ বিষয় ও আছে সেগুলোও লিখো, পজিটিভ উদাহরণ দিয়ে মানুষকে উৎসাহিত করা দরকার। আমি তার সাথে একমত, কিন্তু এইসব অন্যায় নির্যাতনগুলোর ভিড়ে আমার চোখ পজিটিভ বিষয়গুলো খুঁজে পায় না। পজিটিভ উদাহরণগুলো দেখতে চাই আমরা সবাই।  

রেজভিনা পারভীন

নৃবিজ্ঞানী, উন্নয়নকর্মী

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 58
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    58
    Shares

লেখাটি ১,৫০৪ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.