রোজিনারা নারী দিবসের অর্থ জানে না

0

ফুলেশ্বরী প্রিয়নন্দিনী:

” হ্যালো!  নাজিয়া! সব ঠিক আছে তো? সেলিব্রিটি গেস্টরা আসবেন, ইউ নো! সব কিছু যেন ওয়েল অরগানাইজড থাকে। লাঞ্চ, ফ্লাওয়ারস অর্ডার করেছো তো? আর বলেছিলাম না আমাদের যে ফিমেল সিকিউরিটি গার্ড আছে তাকে যেন আজকে অবশ্যই ডিউটিতে রাখা হয়! শিরিনকে বলো সব ঠিকঠাক জেনে তোমাকে জানাবে। আর মেইক শিওর যে সব মেয়েরা ড্রেস কোড মেইনটেইন করছে..  এ্যাট লিস্ট আজকে!
 And please.. we don’t want to see your boobs and bumps ! So please do wear your sarees in a decent manner…
Happy Women’s Day! “

ফুলেশ্বরী প্রিয়নন্দিনী

নাজিয়ার পাগল হবার জোগাড়।
গত সাত দিন ধরে এভাবেই একনাগাড়ে শারমীন আপার ব্রিফিং চলছে। ৮ মার্চ বিশ্ব নারী দিবসে অফিসে বেশ বড় আয়োজন হয় প্রত্যেকবার। ওদিকে নারী দিবসের আয়োজন করতে গিয়ে নাজিয়ার যে কত কী হজম করতে হলো বাড়িতে! একদিকে শারমীন আপার যখন-তখন হুকুম আর তাগাদা।

অন্যদিকে বাড়িতে রাশেদের সব ব্যাপারে নাক গলানোর বদভ্যাসে দম বন্ধ হয়ে আসে নাজিয়ার। অফিসের বাড়তি ঝামেলা সে কেন ঘাড়ে নিতে যায় এই নিয়ে তুলকালাম। এছাড়াও নারী দিবসের ড্রেস কোড হিসেবে গাঢ় গোলাপি শাড়ি কিনতে গিয়ে রাজ্যের সব ছোটলোকি কথাবার্তা শুনতে হয়েছে রাশেদের কাছ থেকে! রোজগেরে মেয়ে হয়েও নিজের জন্য পয়সা খরচের স্বাধীনতা পর্যন্ত যে অর্জন করতে পারেনি সে কিনা আবার নারী দিবসের আয়োজক! নিজেরই কেমন লজ্জা লাগে।

শিরিন আর অপু দম্পতিকে দেখলে মনটাই ভরে যায় নাজিয়ার। দুজনেই ওর সহকর্মী। কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ঘরেবাইরে কাজ করে ওরা। কাজের দায়িত্ব ভাগাভাগি করে নেয়। এমন সম্পর্ক সত্যিই এগিয়ে যাবার আশা জাগায় মনে। ওদের মতো যারা, তারাই আসলে পথ দেখানোর যোগ্যতা রাখে। 

নাজিয়া হয়তো সংসারে নিজের এই অবস্থান নিয়ে লজ্জিত হয়, বিব্রত হয়। কিন্তু সত্যিকার চিত্রটা হলো, শারমীন আপার মতো ডাকসাইটে “বসের” বেলাতেও এর ব্যতিক্রম হয় না। নারী দিবসের অনুষ্ঠানে গান গাইতে চেয়েও পরে পিছিয়ে যায় শারমীন আপা। কারণ তার ” হাজব্যান্ড ” পছন্দ করেন না গান-বাজনা করা। এই তো আজ সকাল থেকে শুরু করেছে টিপ্পনী কাটা – ” কী এই তোমার উইমেন্স ডে’র ড্রেসকোড ! পারোও লোক হাসাতে। নারী দিবস, শাড়ি দিবস, চুড়ি দিবস আরো যে কী কী দিবস করবা এরপর !  ইউজলেস শাম্মি! তার চেয়ে বেটার উইদাউট ড্রেসে রাস্তায় নেমে পড়ো..  হা হা হা..  ইয়েস, ডু ইট! বোল্ড অ্যান্ড বিউটিফুল উইমেন.. ইন ফ্যাক্ট ওটাই তো চাইছো তোমরা – ন্যাংটা হয়ে বেড়াবে, কার বাপের কী!!  তাই না?  ব্রেইনলেস বিচেস সব !! “..

অফিসে যার দাপটে সবাই সন্ত্রস্ত, ভয়ে থরহরি কম্প সেই শারমীন আপার উইমেনস ডে’র সকালে পাওয়া প্রথম শুভেচ্ছাবার্তা !! কাউকে বলা যায়!

অফিসের নিরাপত্তারক্ষী রোজিনা বেগম। দুই বছর ধরে নিষ্ঠার সাথে এই পদে কাজ করছে। ঝকঝকে হাসি আর তীক্ষ্ণ চাহনির সুঠামদেহী এই কৃষ্ণকলি সবার আস্থা অর্জন করেছে। কে বলবে দরিদ্র কৃষক পরিবারের এই মেয়েটিকে একদিন দালালের হাতে বিক্রি করে দিয়েছিল “স্বামী” নামের এক অপদার্থ! সেখান থেকে প্রাণ নিয়ে পালায় সাহসী মেয়েটি। গ্রামে ছোটবেলা থেকে ‘ডাকাবুকো’ বলে পরিচিতি ছিল। সামান্য লেখাপড়া জানতো। মানুষের বাড়িতে কাজ করবে না বলে অন্য কোনো কাজ খুঁজতে শুরু করে। ভাগ্যের ফেরে একদিন এক সিকিউরিটি গার্ড কোম্পানিতে কাজের সুযোগ পেয়ে যায়।এখন নিজের রোজগারে মোটা চালের বাসি ভাতে পোড়া মরিচ ডলে তৃপ্তি করে ভাত খায়, শান্তির ঘুম ঘুমায়। স্বামী নামের ওই বজ্জাত লোকটা কোথা থেকে জানি একদিন উদয় হলো। ইনিয়ে-বিনিয়ে ফিরে যাবার কথা বলে রোজিনাকে, সংসার করার, সন্তান হবার লোভ দেখায়, শাকিব খানের বই ( সিনেমা) দেখার লোভ দেখায়। ততোদিনে রোজিনা অন্য মানুষ। বদ লোকটার কুমিরের কান্নায় মন ভোলে না তার। ঝেঁটিয়ে বিদায় করে লোভী ইতরটাকে।
আজকে অফিসে ” বিশ্ব নারী দিবস ” বলে কী যেন এক অনুষ্ঠান হবে। বড় বড় লোকেরা আসবে। সব ম্যাডামরা গোলাপি শাড়ি পরে এসেছেন। রোজিনা তার নিরাপত্তা রক্ষীর জন্য নির্ধারিত ইউনিফর্মে।  শারমীন ম্যাডাম বলেছেন, রোজিনার অনেক কড়া দায়িত্ব আজকে। কেননা অফিসে ঢোকার সময় অতিথিদের প্রথম সাক্ষাৎ হবে তার সাথেই। রোজিনা নারী দিবসের মানে বোঝে না। সে শুধু জানে বস্তার মতো ভারী  ইউনিফর্ম পরে রোদ – ঝড় – বৃষ্টিতে তাকে তার কাজটা ঠিক ভাবে করে যেতে হবে। নিজের রোজগারে বাসিভাতে মরিচ ডলে খেতে হবে।

শারমীন ম্যাডাম এসে গেছেন। সটান দাঁড়িয়ে সালাম জানায় রোজিনা। সানগ্লাস কপালে তুলে ম্যাডাম তাকে নির্দেশ দেন বড় করে লেখা ব্যানারটাকে সরিয়ে সামনে নিয়ে আসতে যেন সবাই দেখতে পায়। রোজিনা ব্যানারটা টেনে এনে সামনে রাখে। ব্যানারে এবারের নারী দিবসের শ্লোগান লেখা –

BE BOLD FOR CHANGE. 
BE BOLD. BE THE CHANGE.

রোজিনা ইংরেজি ভালো করে পড়তে পারে না।

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    9
    Shares

লেখাটি ১,০২৯ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.