সম্বোধন

তানিয়া কামরুন নাহার

ক্ষণিকা বাসের কায়েস মামা হঠাৎ পোস্টারিং করা শুরু করলো, “মামা ডাকবেন না পোস্টার দেখে আমরা মুখ টিপে হাসলাম। মামা, ডাক তবুও থামেনি। কেউ মামা ডেকে ফেললেই কায়েস মামা উত্তেজিত হয়ে কথা শুনিয়ে দিতো, “মামা ডাকবেন না।ভাই’ ডাকেন, নাহয় শুধু ড্রাইভার ডাকেন।

মামার কথা শুনে আমাদের আরো হাসি পেতো। কেউ কেউ আরো বেশি করে মামা ডাক শুরু করলো, কেউ কেউ কিছুই ডাকতো না এরপর। ক্যাম্পাসের যত কর্মচারী, রিক্সাওয়ালা, ঝালমুড়ি, ভেলপুরি, আচার মামাদের বরাবর মামা ডেকে এসেছি। হঠাৎ কায়েস মামার এতো আপত্তি কেন হলো, এটা জানা যায়নি

বন্ধুদেরকেওমামা“, বেশি উচ্ছ্বাসেমাম্মাআয়ায়াডাকার চল ছিল। বন্ধুদের কেন মামা ডাকতাম, এটাও জানি না। মেয়েদেরকে ছেলেরামামীডাকার চেষ্টা করতো এই যুক্তিতে, “আমরা যদি মামা হই, তাহলে তোরা কী?” যদিও এই মামী ডাক হালে পানি পায়নি, মামা টিকে গিয়েছে। হাল আমলে এইমামাহয়ে গিয়েছেড্যুডআরব্রো‘!

তানিয়া কামরুন নাহার

ছোট্টবেলায় মায়ের হাত ধরে যখন মার্কেটে যেতাম, ডাক শুনতামবাবু একটু বড় হবার পর দোকানিরা আমার মাকে ডাকতোআন্টিআর আমাকেআপু এই আপু ডাক শুনে খুব ভালো লাগতো, নিজেকে বড় বড় মনে হতো। আরও কিছুদিন পর লক্ষ্য করলাম দোকানিরা আমার মাকেবড় আপুআর আমাকেছোট আপুবলে ডাকছে দিন আরো গড়ালো দোকানিরা আমাকে খালাম্মা আর আমার মাকে আপু ডাকা শুরু করলো পথেঘাটে বের হলে আমার অল্পবয়সী ছেলেমেয়েরা প্রায়আন্টিবলে সম্বোধন করে

বয়স বাড়ছে, কিছুদিন পর নানী দাদী ডাক শোনার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত হচ্ছি ফেবুতে কে জানি আমাকে খুবআন্টিপুবলে কয়দিন ডাকলো

ছেলেদেরকেভাইয়াবলে ডাকলে তাদের যে বুক ভেঙ্গে চৌচির হয়ে যায়, সে কথা ফেবুর ট্রল দেখেই প্রথম জানতে পেরেছি। আমাদের সময়েভাইয়াডাক নিয়ে এমন ক্লাইম্যাক্স ছিল না। অবশ্য কোনো কোনো অতি বুদ্ধিমানভাইয়াডাক এড়ানোর জন্য জুনিয়র সেজে বসে থাকতো। মেজাজ খারাপের চূড়ান্ত হতো, যখন দেখতাম সেইজুনিয়রআপু ডাক না ডেকে বেয়াদবের মতো নাম ধরে ডাকছে।

ছবিটি রাজেশ্বরী প্রিয়রঞ্জিনীর আঁকা

বাচ্চাদের মায়েরা একে অপরকেভাবিবলে সম্বোধন করে। কিন্তু কখনোই বাচ্চাদের বাবারা একে অপরকেদুলাভাইবলে সম্বোধন করে না। সম্ভবত কেউ কারো শ্যালক হতে চায় না। কিন্তু বাচ্চাদের মায়েরা অতি সহজেই একে অপরের ভাবি একই সাথে ননদ হয়ে যেতে পারে। বাচ্চাদের মায়েদের শুধু নারীরাই নয়, অন্য পুরুষেরাও অনেক সময়আপা বদলেভাবিবলে সম্বোধন করে থাকে। কিন্তু ব্যাপারটা খুব বিরক্তিকর হয়ে যায় কোন অবিবাহিত নারীর বেলায়

ইদানিং একটা বাজে সমস্যায় মেয়েরা প্রায় পড়ে। বাসের ভাড়া চাইতে এসে কন্ডাকটর তাদেরকেচাচীবাভাবিবলে সম্বোধন করে। আপা বা খালা সম্বোধন না করেই গণহারে এরকম চাচী/ভাবি ডাকের সংস্কৃতি হঠাৎ কোথা থেকে এলো? নাকি ঈভ টিজিং এর ধরন পাল্টাচ্ছে? এসব ক্ষেত্রে কন্ডাকটরকে প্রশ্ন করি, আপনার কোন চাচা/ভাইকে আমি বিয়ে করেছি?

এক কন্ডাকটর মামার যুক্তি ছিল, যারেই বিয়া করবেন, সে আমার চাচা হইবো।

এই পর্যায়ে এসে আমার কায়েস মামার কথা মনে পড়ে যায়।

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.