ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা রণক্ষেত্র, সংঘর্ষ-ভাঙচুর

Sahbagh
ছবি : মনিরুল আলম। (প্রথম আলো অনলাইন)

উইমেন চ্যাপ্টার: চাকরিতে বিদ্যমান সব ধরনের কোটা ও ৩৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফল বাতিল করে তা পুনর্মূল্যায়নের দাবিতে দ্বিতীয়দিনের মতো আন্দোলন করছেন পরীক্ষার্থীরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পুলিশের সঙ্গে বিসিএস পরীক্ষার্থীদের দফায় দফায় সংঘর্ষের খবর পাওয়া যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত সংঘর্ষে একাত্তর টেলিভিশনের রিপোর্টার, ক্যামেরা পারসনসহ পাঁচজন আহত ও পাঁচটি যানবাহন ভাঙচুরের খবর পাওয়া গেছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশের সব পথ।

বেলা ১১টার দিকে ৩৪তম বিসিএসের পরীক্ষার্থীরা শাহবাগে জড়ো হতে শুরু করলে পুলিশ বাধা দেয়। এরপর চারুকলা অনুষদের সামনের রাস্তায় পুলিশের সঙ্গে পরীক্ষার্থীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরীক্ষার্থীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুঁড়লে পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের কয়েকটি শেল ছোড়ে। পরীক্ষার্থীরা এ সময় দুটি গাড়ি ভাঙচুর করেন। বর্তমানে পরীক্ষার্থীরা চারুকলার সামনে আগুন জ্বেলে বিক্ষোভ করছেন। পুলিশ জাতীয় গণগ্রন্থাগারের সামনের রাস্তায় অবস্থান নিয়েছে।

আন্দোলনরত পরীক্ষার্থীদের একটি মিছিল দুপুর ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে নীলক্ষেতের দিকে এগিয়ে যায়। নীলক্ষেত এলাকায় পুলিশ মিছিলে বাধা দিলে পরীক্ষার্থীরা ইটপাটকেল ছোঁড়ে। পুলিশও পাল্টা কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোঁড়ে। পরে মিছিলটি ফিরে এসে উপাচার্যের ভবনে হামলা চালায়। এ সময় ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা কেন, জবাব চাই’ স্লোগান দিতে থাকেন পরীক্ষার্থীরা। তাঁরা দুটি ব্যক্তিগত ও সিএনজিচালতি একটি অটোরিকশা ভাঙচুর করেন।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে অবস্থিত উপাচার্যের কার্যালয় অবরুদ্ধ করে রাখেন আন্দোলনরত পরীক্ষার্থীরা। এ ছাড়া প্রশাসনিক ভবনের সামনে মল চত্বরে অসংখ্য পরীক্ষার্থী জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করছেন।
আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে নীলক্ষেত থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশের পথে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বেলা পৌনে একটার দিকে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ও মাস্টারদা সূর্যসেন হল থেকে আসা ছাত্রলীগের বেশ কিছু নেতা-কর্মী। পরীক্ষার্থীদের লাঠিপেটা করে তাঁরা ছত্রভঙ্গ করে দেন।
কোটা রাখার পক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের সামনে থেকে ছাত্রলীগ একটি মিছিল বের করে। মিছিলটি টিএসসির সামনে গিয়ে শেষ হয়।

সংঘর্ষে আহত পাঁচ ছাত্রকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ সূত্রে জানা গেছে, তাঁরা সবাই রাবার বুলেটের আঘাতে আহত হয়েছেন।
পুলিশ জানায়, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতেই তাঁদের শাহবাগ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।
শাহবাগে প্রতিবাদ-বিক্ষোভের মুখে বুধবার বিকেলে সদ্য প্রকাশিত ৩৪তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফল পুনর্বিবেচনার সিদ্ধান্ত নেয় সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি)।
পিএসসি ফল পুনর্মূল্যায়নের সিদ্ধান্ত নিলেও চাকরিতে বিদ্যমান সব ধরনের কোটা ও ৩৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফল বাতিল না করা পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলে ঘোষণা দেন পরীক্ষার্থীরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় সংঘর্ষের কারণে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বুধবারের মতো আজও ভয়াবহ যানজটে পড়েছে রাজধানীবাসী।

এদিকে ঢাকার বাইরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এবং সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও মানববন্ধন এবং সড়ক অবরোধ করেছে বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.