পোশাক কারখানায় নিরাপত্তা বৃদ্ধিতে চুক্তি

garmentsউইমেন চ্যাপ্টার ডেস্ক (০৮ জুলাই): ইউরোপ-ভিত্তিক ৭০টি খুচরা বিক্রেতা ও পোশাক ব্র্যান্ডের জোট বাংলাদেশে গার্মেন্টস কারখানাগুলোর নিরাপত্তা বাড়ানোর জন্য ‘অ্যাকর্ড অন ফায়ার অ্যান্ড বিল্ডিং সেফটি ইন বাংলাদেশ’ নামে একটি চুক্তি করেছে।

বিবিসি অনলাইনের এক খবরে আজ এই চুক্তির কথা জানিয়ে বলা হয়েছে, এই চুক্তির ভিত্তিতে বাংলাদেশে বিদেশি কোম্পানিগুলোর জন্য পোশাক প্রস্তুত করে এমন কারখানাগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা আগামী ন’মাসের মধ্যে পরিদর্শন করবেন একদল আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞের দল। পরিদর্শনে কোন কারখানার নিরাপত্তা ব্যবস্থায় কোন প্রকারের ত্রুটি দেখা গেলে তা সারিয়ে তুলতে প্রয়োজনীয় সাহায্য করা হবে।

সম্প্রতি দেশে রানা প্লাজাসহ আরো কিছু কারখানায় ঘটে যাওয়া দুর্ঘটনায় এক হাজারেরও বেশি শ্রমিকের প্রাণহানিতে ইন্ডাস্ট্রিঅল এবং ইউনি নামে দুটি আন্তর্জাতিক শ্রম অধিকার প্রতিষ্ঠান এমন উদ্যোগ নেয় বলে খবরটিতে বলা হয়।

বাধ্যতামূলক এই চুক্তির মেয়াদকাল হবে পাঁচ বছর।

চুক্তিতে বলা হয়, আগুন ও কারখানা ভবনের নিরাপত্তা সংক্রান্ত একটি আন্তর্জাতিক পরিদর্শক দল আগামি নয় মাসের মধ্যে বাংলাদেশের যেসব কারাখানা এই ৭০টি বিক্রেতাকে পোশাক সরবরাহ করে তার সবগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন করবে এবং পর্যালোচনা করবে। অনুসন্ধানে প্রাপ্ত মারাত্মকভাবে ঝুঁকিপূর্ণ কারখানাগুলোকে মেরামতের সময়কালে বন্ধ রাখার জন্য বলা হবে। তবে এই প্রক্রিয়ায় যাতে শ্রমিক ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেদিকে খেয়াল রেখে বন্ধের সময়ে শ্রমিকদের বেতন প্রদান করা হবে।

চুক্তির উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আপাতদৃষ্টিতে চুক্তিটি কেবল খুচরা বিক্রেতাদের হলেও এতে জড়িত থাকবেন আন্তর্জাতিক বিক্রেতা সহ গার্মেন্টস কারখানা মালিক, শ্রমিক এবং বাংলাদেশের সরকার।

চুক্তিতে সই করা ৭০ টি বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ও ব্যান্ডের এই পরিদর্শনে বাংলাদেশের শত শত গার্মেন্টস কারখানা এই পরিদর্শনের আওতায় আসবে।

চুক্তির উদ্যোক্তারা আশা করছেন, আরো অনেক বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান এই চুক্তিতে সই করবে। যদি তা’ই হয় তাহলে বাংলাদেশের প্রচুর কারখানা এই পরিদর্শনের আওতায় চলে আসবে।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.