মিশরে মুরসি সমর্থক ও সেনাবাহিনীর সংঘাতে নিহত ৪০

ছবি: বিবিসি অনলাইন
ছবি: বিবিসি অনলাইন

উইমেন চ্যাপ্টার ডেস্ক (০৮ জুলাই): মিশরের রাজধানী কায়রোতে মুরসি সমর্থক ও সেনাবাহিনীর সংঘাতে কমপক্ষে ৪০ জন মুরসি সমর্থক নিহত হয়েছে। মুসলিম ব্রাদারহুডের পক্ষথেকে এ ঘটনাকে ‘গণহত্যা’ আখ্যা দিয়ে সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে।

সেনাবাহিনীর বরাত দিয়ে বিবিসি অনলাইনের এক খবরে বলা হয় মুরসির অস্ত্রধারী সমর্থকরা সেনাবাহিনীর একটি ব্যারাকে হামলা চালালে তারা গুলি চালাতে বাধ্য হয়েছে।

কিন্তু ইসলামপন্থী দলটি বলছে ভোরে নামাজের সময় তাদের উপর গুলি চালানো হয়। তারা মিশরের জনগণকে সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার ডাক দিয়েছে।

খবরটিতে আরো বলা হয় কায়রোতে মুসলিম ব্রাদারহুডের রাজনৈতিক সংঠণ ফ্রিডম অ্যান্ড জাস্টিস পার্টির সদর দপ্তর বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। পুলিশ বলছে, তল্লাশির সময় সেখানে তারা অস্ত্র পেয়েছে।

বিক্ষোভকারীরা মুরসিকে আটকে রাখা হয়েছে সন্দেহে প্রেসিডেন্সিয়াল গার্ডস-এর একটি ব্যারাকেও হামলা করেছে।

বিক্ষোভকারীরা গত কয়েকদিন থেকেই মুরসিকে স্ব-পদে পুনর্বহাল ও ব্রাদারহুডের আটককৃত সকল নেতার মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন সেনা ব্যারাকে সহিংস হামলা অব্যাহত রেখেছে।

তাহরির স্কয়ারেও আন্দোলন থেমে নেই। আজ তাহরির স্কয়ারে মুরসি-বিরোধীরা সেনাবাহিনীর সিদ্ধান্তের পক্ষে একটি র‌্যালি করেছে।

এদিকে মিশরে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার নিয়ে ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। মুরসি সমর্থকদের সহিংস আন্দোলনের মুখে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে অনিশ্চয়তা। যদিও দেশটির সেনাবাহিনী বারবার বলে আসছে যে যত দ্রুত সম্ভব অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করে নির্বাচন দেয়া হবে।
কিন্তু ইসলামপন্থীদের আপত্তির মুখে মি. বারাদির নিয়োগ নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে, এবং নতুন করে সংঘর্ষিক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। যদিও তামারোদ মুভমেন্টসহ কয়েকটি রাজনৈতিক দল প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এল বারাদি ছাড়া অন্য কাউকে মেনে নেবে না বলে জানিয়েছে।

অনিশ্চয়তা থাকলেও অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রধান কে হবেন তা নিয়ে জল্পনা কল্পনাও থেমে নেই। মিসরের গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে জিয়াদ বাহা-এলদিন নামে একজন আইনজীবী ও রাজনৈতিকের নাম শোনা যাচ্ছে।

দেশটির একজন প্রেসিডেন্সিয়াল মুখপাত্র মিসরের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে জানিয়েছেন, যে জিয়াদ বাহা-এলদিন নামে একজন আইনজীবী ও রাজনৈতিককে অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেয়ার ব্যপারে চিন্তাভাবনা চলছে।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.