মিশরে রাতভর সহিংসতায় ২৬ জন নিহত

egypt
ছবি: এএফপি

উইমেন চ্যাপ্টার ডেস্ক (০৬ জুলাই): মিশরে রাতভর সহিংসতায় বহু লোক হতাহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বার্তা সংস্থা এএফপির খবর অনুযায়ী শুক্রবার কায়রোতে সেনা অভ্যুত্থানে ক্ষমাতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট মুরসি ও সেনাবাহিনীর মধ্যাকার সংঘাতে কমপক্ষে ২৬ জন নিহত হয়েছে।

খবরে বলা হয়, মুরসি সমর্থকরা আজ শনিবার থেকে মুরসিকে পুনরায় ক্ষমতাসীন করার দাবীতে আবার প্রতিবাদ শুরু করেছে।

অস্ত্রধারী মুরসি সমর্থকরা আল-আরিশের হেডকোয়ার্টার সহ বিভিন্ন স্থাপনায় হামলা করে আল-কায়েদার মত কালো পতাকা উত্তোলন করলে সংঘাতে প্রায় ১৬ জন আহত হয়।

সংবাদ সংস্থা মিনার বার্তা অনুযায়ী আলেক্সান্দ্রিয়ার রাস্তায় সহিংসতায় কমপক্ষে ১২ জন নিহত হয়েছে।

পুলিশ ব্যাপকভাবে ধরপাকড় অব্যাহত রেখেছে। মুসলিম ব্রাদারহুড আন্দোলনে মুরসির পিছনে সবচেয়ে ক্ষমতাশালী মানুষ হিসেবে দেখা খাইরাত আল সাতারকে গ্রেফতারের ঘোষণাও দিয়েছে তারা।

মিশরের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবরে বলা হয়, মুরসি সমর্থকরা তাহরির স্কয়ারের প্রতিরোধকারীদের উদ্দেশ্যকে গুলি ছুঁড়লে কমপক্ষে দুইজন নিহত হয়।

পরবর্তিতে সেনাবাহিনী সাঁজোয়া যান ব্যাবহার করে প্রতিরোধকারীদের পৃথক করে।

এক বিবৃতিতে মিশরের সেনাবাহিনীর মুখপাত্র কর্নেল আহমেদ আলী বলেন, আমরা কোন পক্ষ নিচ্ছি না, যে কোন প্রতিরোধকারীর সুরক্ষা প্রাধানই আমাদের মূল লক্ষ্য।

রিপাবলিকান গার্ড সদর দপ্তরের সামনে চারজন মুরসি সমর্থক নিহত হয়েছে বলে সংবাদ সংস্থা মিনার বার্তায় বলা হয়।

একই ঘটনার ব্যাপারে এএফপির বার্তায় বলা হয়, মুরসি সমর্থকদের মধ্যে একজন ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্টের ছবি উঁচিয়ে ধরলে তাকে সতর্ক করে নামিয়ে ফেলতে বলে সেনা সদস্যরা। কিন্তু সেনাদের কথা না মেনে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে।

এদিকে মিশরের চলমান সংকটে জাতিসংঘ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুনের বরাত তাঁর এক মুখপাত্র বলেন, ‘কোনো বড় দল বা সম্প্রদায়কে বর্জনের অথবা হত্যা করার কোন সুযোগ নেই।’

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.