সেয়ানে-সেয়ানে লড়াই আজ

0

brazil-spainউইমেন চ্যাপ্টার (৩০ জুন): একদিকে বর্তমান বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন স্পেন, অন্যদিকে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। একদিকে এবারের কনফেডারেশান্স কাপের সবচাইতে ফেবারিট দল স্পেন, অন্যদিকে কনফেডারেশান্স কাপের হ্যাট্রিক শিরোপা প্রত্যাশী দল ব্রাজিল। একদিকে তারকায় ভর্তি স্পেন, অন্যদিকে সম্পূর্ণ তরুণ একটি দল ব্রাজিল।
বিশ্লেষকরা এভাবেই সঙ্গায়িত করছেন আজকের ফাইনাল। ব্রাজিলের সমর্থকদের বাজি ধরতে সহায়তা করছে ব্রাজিলের ইতিহাস। কারণ ১৯৭৫ সাল থেকে ব্রাজিল এ পর্যন্ত নিজেদের মাটিতে একটি প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচও হারেনি। এর থেকেও বড় ১৯৩৮ সালের পর ব্রাজিলকে স্পেন দল কখনো হারাতে পারেনি। সাম্প্রতিক রেকর্ড ও ব্রাজিলের সমর্থকদের আশার সঞ্চার করে। কারণ গত ৮ ম্যাচে ব্রাজিল প্রতিটি ম্যাচে কমপক্ষে দুটি করে গোল করেছে।

এদিকে টানা ২৯ ম্যাচে অপরাজিত স্পেনের সমর্থকদের মনও একেবারেই নড়বড়ে নয়। বরং তারা অপেক্ষা করছে ১৯৩৪ সালের পর থেকে হারের বদল নিতে। নতুন করে ইতিহাস লিখতে। পরিসংখ্যানও স্পেনের পক্ষেই কথা বলে। সেমিফাইনালে ইতালির সাথে ম্যাচটির আগে টানা ১৫ ম্যাচে গোল করেছে স্পেন দল।

ব্রাজিলের বস লুইস ফেলিপ স্কলারিতো আরও এককা সরেস। তিনি বললেন যে, তার বিশ্বাস, আজকের এই ফাইনালে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন স্পেনকে হারিয়ে ব্রাজিল এাই প্রমাণ করবে যে, ২০১৪ সালে অনুষ্ঠেয় ফিফা বিশ্বকাপ জিততেও তারা প্রস্তুত আছে।

এ রকম নানান পরিসংখ্যানের হিসাব কশতে বসে গেছে দুই দলেরই সমর্থকরা। আপাতত যুদ্ধটা যুক্তিতে নিজের দলকে জিতিয়ে রাখাটাই বেশি জরুরি। যদিও স্পেনের কোচ ভিসেন্তে দেল বস্ক ফাইনালে খেলতে পেরেই অনেক খুশি। স্পেনের কোচ হিসেবে ২০১০ সালের বিশ্বকাপ আর ২০১২ সালে টানা দ্বিতীয়বারের মতো ইউরো কাপ জিতেছেন। এখন কনফেডারেশনস কাপ জিততে পারলেই তিনি চলে যাবেন অন্য উচ্চতায়। তবুও তিনি ব্রাজিলকে যোগ্য সম্মান দিয়েই বলছেন, ‘আমি খুবই সন্তুষ্ট। মারাকানা স্টেডিয়ামে ব্রাজিলের বিপক্ষে খেলতে পারাটা সত্যিই বিশেষ কিছু।’

ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জয়ী কোচ লুইস ফেলিপ স্কলারির জন্য এটি আত্মবিশ্বাস ফেরানোর মিশন। বিশ্বকাপ মহড়ার সাত ম্যাচের মধ্যে পাঁচ ম্যাচেই হেরে ব্রাজিলের সমর্থদের আত্মবিশ্বাস যখন তলানিতে, তখন এই শিরোপাটি জেতা ব্রাজিলের খেলোয়াড় সমর্থকসহ সকল শুভাকাঙ্খীর আত্মবিশ্বাস ফেরানোর জন্য খুবই জরুরি।

আপাতত সকল হিসাবের উর্ধে সবার চোখই ভোর রাত ৪টায় শুরু হওয়া ফাইনালটির দিকে। কারণ সবাই জানেন মাঠের হিসাবটা মাঠেই হয়। সেখানে কোন পরিসংখ্যানই কাজ করে না। তবে পরিসংখ্যানের হিসাবে বোঝা যাচ্ছে একটা মহারণই হতে যাচ্ছে মারাকানায়।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লেখাটি ১,০০৫ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.