কোন পথে হাঁটছে বাংলাদেশ?

তানিয়া মোর্শেদ: পহেলা বৈশাখে বিকাল পাঁচটার পর মেলা বন্ধ। নিরাপত্তার অজুহাতে। গত বৎসরের ভিডিও ফুটেজ থেকে কাউকেই শনাক্ত করা গেলো না! এরপর কি বইমেলা, বাণিজ্যমেলাসহ সব ধরনের আয়োজন এভাবেই আক্রান্ত হবে?

তারপর এক সময় বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ, স্কুল। তারও পরে নিজের বাড়ির সামনেও “নিরাপত্তার” অজুহাতে নারীর বের হওয়ার উপর সান্ধ্য আইন জারী হবে?

নারীর নিরাপত্তার অজুহাতে বোরখা, নিকাব, হিজাব, হাত মোজা, পা-মোজা সব দিয়ে ঢেকে বস্তাবন্দী করে কোন রাষ্ট্র, সমাজ ধর্ষণ, যৌন নির্যাতন, হত্যা বন্ধ করতে পেরেছে?

প্রতি বছর যত ধর্ষণ, নির্যাতনের খবর আসে একটিরও কি বিচার হয়েছে?

বিচারহীনতার ইতিহাসের মূল্য সবাইকেই দিতে হচ্ছে, হবে। এখনো যারা ভাবছেন, আমার তো কিছু হয়নি, হবে না, তারা জেগে জেগে নিদ্রা যাচ্ছেন। একটি রাষ্ট্রের, সমাজের উন্নয়নের পরিচয় শুধু ব্রিজ-রাস্তা-বহুতল ভবন-চোখ ধাঁধানো শপিং মল, সবকিছু “ডিজিটালাইজেশন” করা, বা জিডিপিও নয়।

বাইরের সৌন্দর্য্য, চাকচিক্য যদি “উন্নত” সমাজের একমাত্র পরিচয় হতো তাহলে মধ্যপ্রাচ্যের কিছু দেশ সেই লিস্টে থাকতো। উন্নত সমাজ, রাষ্ট্রের পরিচয় পাওয়া যায় সেখানকার নারী এবং অন্যান্য সংখ্যালঘুর অবস্থান দেখে। এই সংখ্যালঘু মানে সংখ্যায় কম নয়।

যদি তাই হতো তাহলে নারী (সংখ্যায় অর্ধেক বা তারও কিছু বেশী) এবং অন্যান্য সংখ্যলঘু মিলে তারাই সংখ্যাগুরু। এই সংখ্যালঘু মানে যাঁদের কন্ঠস্বর রুদ্ধ। অতীতের অনেক গর্বিত ইতিহাস থাকা সত্ত্বেও অনেক জাতির পতন হয়েছে, ইতিহাস থেকেই প্রায় মুছে গেছে। বাংলাদেশ কি সেই পথে হাঁটছে?

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.