মনে রাখিস, আমি একটা বেশ্যা…

শারমিন শামস্: আমি একটা বেশ্যা। কী ভড়কে গেলেন তো! জী, ঠিকই শুনেছেন। আমার চালচলন, বলন, ধরণ, পোষাক-আশাক, কথা, লেখা কোন কিছুই ভালো না। আমি রাস্তা দিয়ে সিনা টান করে চলি। আমি পথের ধারে দাঁড়িয়ে গ্যাজাই, চা-পানি খাই, আমি রাত-বিরাতে রিকশার হুড ফালায়ে ঘুরি, কখনো ইচ্ছা হইলে মদ-টদ খাই, খাইয়া বমিও করি, যখন যা ইচ্ছা তেমন পোশাক পিন্দি। সেইসব পইরা আবার ফটোও তুলি। ফেইসবুকে দেই।

Feminisimআমার চিকন স্লিভ ডিপ নেক লাইনের সেইসব ছবি দেখে লোকজনের মাথা ঘুরে। তারা ছবি দেখে আর কান ঘুসঘুসানি করে। তারপরে ধরেন গিয়া আমি আজেবাজে কথা লিখি, একবার লিখছিলাম, রেপ করতে এলে পুরুষাঙ্গ কেটে দিব। তো সেই লেখা ভাইরাল হয়ে গেল। তারপরে বহু লোকে আমারে কে ক্যামনে রেপ করবে তার প্রকাশ্য বর্ণনা দিতে লাগলো।

তারা বললো, আমি বেশ্যা। তো বেশ্যারে রেপ করাই যায়। তাই তারা করবে। তারা ধরেই নিয়েছে সকলের পুরুষাঙ্গ কাটা হবে। আসলে আমি তো সেটা বলি নাই। কারণ আমি ভাবছিলাম, সবাই রেপিস্ট না। পরে বুঝলাম, সবাই রেপিস্ট। ঘুমিয়ে আছে রেপিস্ট মামা সব পুরুষের অন্তরে।

তো যাই হোক, আমার লেখার বিষয় খারাপ। আমার ছোটকালের বান্ধবী আমারে বলছে, ‘তোর উইমেন চ্যাপ্টারের লেখাগুলো ভালো না। বেশি বিদ্রোহী। অন্যখানে যা লিখিস, সেগুলো ভালো’। তো তার মনে হইসে, মেয়ে হয়ে আমি বেশি তড়ফরাইতেসি। তো আমারে তো বহু লোকেই যাচাই করে।

চোখ দিয়ে, মুখ দিয়ে, লেখা দিয়ে, পোশাক দিয়ে। আমি খারাপ। আমি বেশ্যা। এরকমটা ভাবার লোকের অভাব নাই। তো বেশ্যারে রেপ করা যায়। এটাই এই সুশীল সমাজের নিয়ম। কেন এই নিয়ম? অথবা কেন আমি বেশ্যা? অথবা কেন আমার উপর ক্ষেপলেই দলবেঁধে একপাল পুরুষ সবার আগে আমারে রেপ করার হুমকি দেয়? আমি জানিনা।
রেপ কি তাইলে পুরুষের মূল অস্ত্র নারীর বিরুদ্ধে? রেপ তো আমরা সবাই হইছি। ছোটকাল থেকেই হইছি। যৌনকর্ম করলেই শুধু রেপ হয়? চোখ দিয়া রেপ হয় না? ধর্ষণ কি শুধু পুরুষাঙ্গের? চোখ, হাত, পা, মুখ, কনুই, বুক, পিঠ- কোনটা দিয়া ধর্ষণ করে না পুরুষ এই দেশে?

আজ তনুরে নিয়া যে হাহাকার, এই হাহাকার আগে হয় নাই কেন? এখন হইলো ক্যান? হইলো কারণ তনু সহানুভূতি জাগাইতে পারছে। তনুর হিজাবে ঢাকা নিষ্পাপ মুখ সহানুভূতি জাগাইছে। হিজাব দেইখা সব পুরুষ দরদী হইয়া উঠছে। আহা রে! আমারে কেউ ধর্ষণ করলে এই সহানুভূতি আসতো না। সাথে সাথে আমার ফেইসবুক প্রোফাইল খুইলা আমার হাতা-কাটা, মিনি পরা ছবি বাইর কইরা অনলাইনে নিউজ হইতো। তারপর আমার রেইপ হালাল হইয়া যাইতো।
তবে, দুর্ভাগ্য, তনুরে নিয়া সহানুভূতি জাগছে কি জাগে নাই, তাতে কিছুই আর যায় আসবে না তনুর।

এই কুৎসিত সমাজ,  বীভৎস পুরুষতন্ত্র আর আইনের শাসনহীন এই দেশ ছেড়ে কোথায় কোন অচিন দেশে চলে গেছে এই মেয়ে। আর ফিরবে না। সামাজিক নেটওয়ার্কে তনু আর তার হিজাব নিয়ে কথা চালাচালি চলছে। ভালো। একটা রক্তাক্ত প্রমাণ পাওয়া গেল যে হিজাবে কিছুই বন্ধ হয় না। হিজাব দিয়া রেপ ঠেকানো যায় না।

বরং হিজাব হইলো সেই বস্তু, যা চোখে আঙ্গুল দিয়া দেখায়ে দেয়, তুই একটা খাবার। তুই একটা ঝলসানো মাংসের টুকরা। তুই একটা লালা ঝরানো আইটেম। হিজাব হইলো খাবার ঢাকার ঢাকনি। ঢাকনির নিচে খানাখাদ্য আছে। তাই ঢেকে রাখা লাগে।

যাই হোক। আমার সমাজে পুরুষেরা গরম বেশি পরলে তাদের ঠ্যাং বের করে খালি গায়ে রাস্তায় বাইর হয়। আমি একখান ছোট হাতার জামা পরলেই, আমি বেশ্যা। আমি একটা বড় গলার পোশাক পরলে আমি তাদের আহ্বান জানাইতেসি। তো, বেশ। আমি বেশ্যা। এবার বল, কী করবি? আমি আমার পছন্দের পোশাক পরবো, যা ইচ্ছা তাই বলবো, যখন ইচ্ছা বাইরে যাবো, যেভাবে ইচ্ছা দাঁড়াবো, বসবো, কথা বলবো।

যে সমাজ রাতের অন্ধকারে বেশ্যার দরজায় টোকা মারে আর দিনের বেলায় তারে দেখে থুতু ছিটায়, যে রাষ্ট্র নারী উন্নয়নের বুলি কপচায়ে কপচায়ে ফেনা তোলে কিন্তু আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে পারে না, যে গণমাধ্যম বিশেষ ক্ষমতাবান রেপিস্টের পুরুষাঙ্গের জোর দেখে কুঁকড়ে চুপ করে থাকে, সেই সমাজের মুখে আমার মত এরকম সহস্র বেশ্যা রেগুলার থুতু মারতেসে, আরো মারবে, মারতেই থাকবে। মনে রাখিস।

শেয়ার করুন:
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

*************************************************************
মুক্তিযোদ্ধাদের ইতিহাস সংরক্ষন সম্পর্কিত সংবাদ
*************************************************************
http://www.mssangsad.com/form.php?actionID=form
মুক্তিযোদ্ধারা তাদের যুদ্ধের ইতিহাস এই লিং টায় গিয়ে অনলাইনে পূরন করে দিতে পারেন তাদের যুদ্ধের ইতিহাস সংরক্ষণের জন্য ।
*************************************************************

মুক্তিযুদ্ধ বাঙ্গালীর জীবনে এক মহত্তম ঘটনা। অসীম সাহসিকতা, বীরত্ব, আত্মত্যাগ, আর অবর্ণনীয় দুঃখকষ্ট উৎরে যাওয়ার এক বড় ক্যানভাস । এই মুক্তিযুদ্ধের অনেক ইতিহাস ই রচিত হয়েছে কিন্তু এই স্বাধীন বাংলার তৃনমূল থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্তরে পরে থাকা ঐ সব মানুষ যারা এই স্বাধীন বাঙ্গালী জাতীর বীর সন্তান । পরাধীন বাংলাকে স্বাধীন করার লক্ষে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ডাকে সাড়া দিয়ে নিজের জীবনকে বাজী রেখে মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পরেছিল । প্রত্যেকটা মুক্তিযোদ্ধার ই আছে আলাদা আলাদা অসীম সাহসিকতা, বীরত্ব ও আত্মত্যাগ ইতিহাস । তাদের আমরা ক জনেই বা চিনি আর খোজ রাখতে পারি ? এরা হয়তো কালের স্রোতে হারিয়ে যাবে আমাদের মাঝ থেকে । আমরা হয়তো একটু একটু এই সব বাংলার দামাল বীর সৈনিকদের গল্প শুনেছি কিন্তু আগামী প্রজন্মে কাছে এই সব মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের ইতিহাস পৌছে দেয়াও আমাদের এই প্রজন্মের দায়ীত্ব ।

“মুক্তিযোদ্ধার ইতিহাস সংরক্ষণ কমিটি” বাংলাদেশের বর্তমান জীবিত মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যক্তিগত যুদ্ধের ইতিহাস সংরক্ষণ, প্রত্যক্ষদর্শীর যুদ্ধের বর্নণা, মুক্তিযোদ্ধাদের জীবন চিত্র ও বীরত্বপূর্ণ ইতিহাস আগামী প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার লক্ষ্যে ওয়েব সাইট ও বই আকারে প্রকাশ করার জন্য উদ্ব্যোগ গ্রহণ করেছে এবং তার ই ধারাবাহিকতায় ক্রমান্নয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় কাজ করে যাচ্ছে ।

তাই আমাদের এই দেশপ্রেম মূলক ইতিহাস সৃষ্টিকারি কর্মকান্ড যাতে সুষ্ঠ ও সুন্দর ভাবে সম্পন্য করতে পারি তার জন্য দেশের প্রত্যেক স্বাধীনতার স্বপক্ষ্যের ব্যাক্তি বর্গের কাছে সার্বিক সহযোগীতা কামনা করছি ।

*************************************************************
আমাদের http://www.mssangsad.com সাইট টা দেখুন ও আমাদের সাথে কাজ করতে আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।
*************************************************************

অনেক সুন্দর লিখেছো তুমি।এই আমি যে তোমাকে সুন্দর কিছু একটা করে দেখানোর জন্য বাহবা দিচ্ছি সেই আমিই হয়তো রাস্তা দিয়ে কোন সুন্দরী রমনি গেলে বলছি “আপি টু” । তাহলে কি হল??

আপু আপনাকে ধন্যবাদ এই সাহসিকতার জন্য। যেদিন আমরা বুজবো আমরা নারী হলেও পুরুষের মত মানুষ , আর নিজেকে ও সমাজের হাজারো তনুকে বাচাবার জন্য মুখ খুলবো সেদিন হয়তো আমাদের মুক্তি আসবে। আজও কত তনু তাদের উপর হওয়া আন্যায় মুখ বুজে সহ্য করছে কে তা জানে। তবে আমরা তনুর মত না ফেরার দেশে যাবার পর প্রতিবাদ চাই না মানুষ হয়ে বাচঁতে চাই মথা উচু করে। শুধু সহানুভতি না বিচার চাই।

যারা তনুর জন্য মায়া কান্না দেখাই দরদী সাজে কিন্তু এখনও তাদের অনুর হিজাব ইসু বেশি চুলকায় তার বিচার দাবি করার চেয়ে।……পাইসে এইবার একটা ইসু …হিজাব দিয়া কায হয় না… ইসলামী আইন দিয়া ধর্ষণ বন্ধ হয় না তাই সবাই জামা খুইলা নাচুম। শুধুমাত্র ইসলাম ই এর সমাধান দিতে পারে। ইসলাম যে পর্দার সাথে ছেলেদের নিজেদের কে অপকর্ম থেকে পবিত্র রাখা ফরজ করা হইসে সেইটা না দেখার ভান করে লাভ কি…তনু পর্দা করেছিলো কিন্তু ধর্ষক ইসলাম মানে নি,মন আর চোখের পরদা করিনি।এখন যদি ধর্ষক ইসলাম মানত আর ইসলাম এর সাস্তি অনুযায়ী ধর্ষককে শিরচ্ছেদ দেওয়া হত তবে ই শুধু এইগুলো বন্ধ হত।এই তিনটির সমন্বয় সাধন করে ধর্ষণ বন্ধ করতে হবে।

এই তোরা ধর্ম ধর্ম কবে বন্ধ করবি বলতে পারিস।যারা বেশি বেশি ধর্ম ধর্ম করে এরাই হচ্ছে প্রকৃত রেপিষ্ট।যেমন সাঈদি,নিজামি ,গোলাম আজম ইত্যাদি………!!

Mante parlamna . Jownokamona sob purusher ontore thakte pare. Kintu sob purusher ontore dhorson mama ghumiye ache eta kmon kotha?? Valo purushow to ache apnar status Ki Bangladesher sob purush comment korechilo Na apnar lekha dekhe apnak sobai bessa bolechilo. Eto purush beddeshi kno?? Valo purushowto ache taina . Sobar ghar dhore kharap bananota thik mone korina . somaje sob purusher mone Jodi tai thakto deshe ar cheye arow voyal obostha hoto. Apnar protibad amraw somorthon Kori. Apnar protibader vasa onek dharalo suchalo amraw apnar sathe achi. Amraw chai ar kuno nari dhorshito Na hok amraw chai narira jno tader odhikar niye bachte pare. Sobaire eki pallai maipenna. Sobar ontor ek Na.

খুব খারাপ লাগে যখন রাস্তায় একা চলা একটা মেয়ের শরির দেখে বলতে শুনা যায় দারুণ একটা মাল। নিজের বন্ধুদের ও যখন বলি এই ধরনের মন্তব্য করে কি লাভ,কি সুখ পাস?তখন উলটা কথা শুনতে হয়।আমি বলছিনা যে আমি খুব সাধু পুরুষ। মেয়ে দেখলে তাকাইনা এমনটা নয়।তাই বলে কুনো মন্তব্য করতে হবে।আমার আপন কুনো বোন নেই।অনেক ভাইদের দেখি যারা নিজের বোনকে অন্য কেউ কিছু বললে হিংস্র বাঘের মতো অই ছেলের গুষ্টি উদ্ধার করতে দলবল নিয়ে চ্ছুটেন।মন্তব্য করার সময় আমরা কেন ভুলে যাই আমার ও একটা বোন আছে, সেও দরকার পরলে একা বের হয়।
আর শরিরে কিছু হিংস্র দাগ বসালেই কি সেটা ধষন হয়? আমরা সুশীল সমাজের কিছু ভদ্র মানুসেরা যখন রাস্তায় দেখে আসা কিংবা পরিচিত কারো মুখ,বা পুরো শরির টা কল্পনা করে নিজেই নিজের লালসা মিটাই সেটাও কি ধষন নয়?
আসুন দেখি কতজন সাধু পুরুষ আছেন যারা কখনওই কুন ভাবে কাউকে ধষন করেন নি?

*** যৌনকর্ম করলেই শুধু রেপ হয়? চোখ দিয়া রেপ হয় না? ধর্ষণ কি শুধু পুরুষাঙ্গের? চোখ, হাত, পা, মুখ, কনুই, বুক, পিঠ- কোনটা দিয়া ধর্ষণ করে না পুরুষ এই দেশে?
***একটা রক্তাক্ত প্রমাণ পাওয়া গেল যে হিজাবে কিছুই বন্ধ হয় না। হিজাব দিয়া রেপ ঠেকানো যায় না।
আপনাকে শত সহস্র স্যালুট। U r 100% right.
কিন্তু হিন্দু/গারো/খিস্টান ধর্মাবলম্বীর কোন বোন হলে একটা কাক পক্ষিও আওয়াজ তুলতো না।
এ দেশটা এতোটায় বিকিয়ে গেছে।।।
হায়রে দেশ। বাংলাদেশ !!!!!!!!!

Sahosi amder hote hobe…….sudhu uni sahosi hole hobe na……..protibadi amder o hote hobe……sudhu uni protibadi hole hobe na…….amr ektai kotha onnay dekle rukhe daro…..nije onnay korle nijekeo sasti dao…….amra nijera thik hote chai na….kintu onnke thik hobar upodesh di…..amra mone kori somaj sudhu gothito hoyeche j onnay kore take nia…..tai se thik hole sob thik hoy jabe…..nare vai somaj sobai k nia toiri hoy tar moddhe ami nijeo ache…..tai sobai k thik hote hobe…..sobaike onnay er protibad korte hobe…..

You are right.. I totally agree with you Tanu is getting extra publicity because of her Hijab. This shows Hijab generates extra respect and compassion. So wearing Hijab does not make one a prime target for rape! It minimizes her chances of be being a rape victim. Man has a hunger for woman flesh, same way he has hunger for wealth. It’s greed. It’s our inherent flow. Women are very attractive to men. That’s the way it is. There is no way around it. There are times when this greed take over and make us do things, that we are not supposed to do Example murder, robbery stealing , rape.. I am not citing an excuse. All I am saying, if you spend so much money effort and time to safe guard our wealth, why can’t we spend a portion of that to safe guard our women.. There are good men and there are also bad men. So again, if men can do so much to protect his wealth and power, he should certainly do a lot more to protect women. Starting from commercial use of women’s beauty. MAY ALLAH HELP US ALL.

চোখ দিয়া রেপ হয় না? ধর্ষণ কি শুধু পুরুষাঙ্গের? চোখ, হাত, পা, মুখ, কনুই, বুক, পিঠ- কোনটা দিয়া ধর্ষণ করে না পুরুষ এই দেশে? অসাধারণ একটা কথা কইছেন আপুল স্যালুট আপনাকে

There is law to punish the killers but there is killing.
Because, there is private property.
So, law is not the remedy of killing.
There is law to punish the frauds, but there is forgery.
Because, there is private property.
So, law is not the remedy of forgery.
There is law to punish the robbers, but there is robbery.
Because, there is private property.
So, law is not the remedy of robbery.
There is law to punish the hijackers, but there is hijacking.
Because, there is private property.
So, law is not the remedy of hijacking.
There is law to punish the illegal trespassers , but there is illegal trespassing.
Because, there is private property.
So, law is not the remedy of illegal trespassing.
There is law to punish the attackers, but there is attacking.
Because, there is private property.
So, law is not the remedy of attacking.
There is law to punish the kidnappers but there is kidnapping.
Because, there is private property.
So, law is not the remedy of kidnapping.
There is law to punish the terrorists, but there is terrorism. Because, there is private property.
So, law is not the remedy of terrorism.
There is law to punish the missusers of social/collective fund, but there is misuse of social/collective fund.
Because, there is private property.
So, law is not the remedy of misuse of social/collective fund.
There is law to punish liars and cheaters but there is lie and cheating.
Because, there is private property.
So, Law is not the remedy of lie and cheating.
There is law to punish the rapists but there is rape.
Because, there is private property.
So, law is not the remedy of rape.
There is law to punish the criminals, but there are crimes.
Because, there is private property.
So, law is not the remedy of crime.
But, there is only remedy of all such nonsense is abolition of private property.

ঘুমিয়ে আছে রেপিস্ট মামা সব পুরুষের অন্তরে – আক্ষরিক অর্থেই সত্যি। দুই- একজন ভালো মানুষ এক্সাম্পল হতে পারে না। চমৎকার লেগেছে, শেষের ট্যানজাটা।

খুবই কঠিনভাবে বলে ফেললেন। হয়তোবা আপনি আপনার দিক থেকে ঠিকই বলেছেন নয়তো না। তবে কিছু কিছু কথা নির্মমতম সত্য। যা প্রতিষ্ঠার জন্য আমাদের দেশের বা সমাজের হর্তা কর্তারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন!!!!!

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.