নারীর বাহন যখন রিকশা

Rickshaw
ছবি কৃতজ্ঞতা: সৃজিতা মিতু

উইমেন চ্যাপ্টার: রিকশার প্যাডেলে পা রেখে কোনো নারীকে রাজপথে চলতে দেখে চোখ আপনার আটকাবেই। কেউ হয়তো টিপ্পনি কাটবেন, আর কেউ শ্রদ্ধায় নত হবেন। কিন্তু পেটের দায়ে নিজের আত্মসম্মান বজায় রেখে এই অসাধ্যটুকুই সাধন করছেন চট্টগ্রামের ফাতেমা। গায়ের পোশাক আর মাথায় ক্যাপ দেখে আপাত:দৃষ্টে মনে হবে না তিনি কোনো রিকশাচালক। মনে হবে সৌখিন কোনো নারী হয়তো ছবির জন্য পোজ দিচ্ছেন। ভ্রম হতেই পারে। সবার সব খবর কি আমরা জানি?

ফেসবুকে তাঁর ছবিটি দেখেই মনটা আকুল হয়ে উঠলো আরও জানতে তার সম্পর্কে। যতোটুকু জানা হলো, তাতে হতে পারে তার পুরো নাম ফাতেমা বেগম বা আক্তার। তাতে কী এসে যায়! সন্তান জন্ম দিয়েই খালাস হয়েছে যে পুরুষ, সে দিব্যি তাদের দায়িত্ব সঁপে দিয়ে গেছে মায়ের হাতে। শিক্ষাহীন এই নারী তখন কী করবেন? তাই তিনি সমাজের কোনো ভ্রুকুটির তোয়াক্কা না করে বেরিয়ে পড়েছেন রাস্তায়। দিনশেষে খাবার নিয়ে বাড়ি ফিরতে হবে তাকে, এইটুকুই জানেন তিনি। সন্তান দুটি স্কুলে যায়। হয়তো ওই ঝাপসা চোখে কিছু স্বপ্নও এঁকেছেন ফাতেমা, ছেলেমেয়ে বড় হবে, তার দু:খ ঘুচবে। যদিও জানি এসবই অলীক স্বপ্ন, এসবই গুড়েবালি। তারপরও নিরাশায় ঘর বাঁধতে দোষ কোথায়!

আন্তর্জাতিকভাবে নারী নির্যাতন প্রতিরোধে পক্ষকালব্যাপী নানা আয়োজন চলছে বিশ্বের সবদেশে। সেইমূহূর্তে ফাতেমার এই জীবন সংগ্রামের খবর মনে করিয়ে দেয়, নির্যাতন কেবল শারীরিকই নয়, মানসিক, অর্থনৈতিক, সামাাজিকও হয়। সামাজিক এবং অর্থনৈতিক বৈষম্য নারী নির্যাতনের অন্যতম অনুষঙ্গ। যতোদিন না এক্ষেত্রে সমতা আসছে, ততোদিন ফাতেমাদের সংগ্রাম চলবেই। সাহসী এই নারীকে স্যালুট। কর্মক্ষম হয়ে কারও কাছে হাত পাতার চেয়ে লড়াই করে বেঁচে থাকার আনন্দ অনেক।

(কৃতজ্ঞতা: সৃজিতা মিতু)

 

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.