ধর্ষণ মামলায় আপত্তিকর মন্তব্য করায়……….

উইমেন চ্যাপ্টার: কানাডার ফেডারেল আদালত একজন বিচারপতিকে সবধরনের মামলা শুনানি থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছে। একটি ধর্ষণ মামলার শুনানিতে আপত্তিকর মন্তব্য করায় বিচারপতির বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

কানাডিয় বিচারপতি

ফেডারেল আদালতের বিচারপতি রবিন ক্যম্প অবশ্য নিজেই তার কর্মের জন্য বিবৃতি দিয়ে ক্ষমা চেয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, তিনি তাঁর নিজের খরচে ‘লিঙ্গ সংবেদনশীলতা বিষয়ক প্রশিক্ষণে অংশ নেবেন। 

প্রসঙ্গত, ধর্ষণের শিকার হওয়া ১৯ বছরের এক গৃহহীন (হোমলেস) তরুণীর অভিযোগের শুনানি চলছিল আলবার্টার প্রভিন্সিয়াল আদালতে। বিচারপতি রবিন ক্যাম্প তখন ওই আদালতের বিচারপতি এবং আলোচিত মামলার একজন বিচারক।

শুনানির এক পর্যায়ে তিনি তরুণীকে উদ্দেশ্যে করে বলেন,’ তুমি তোমার দু হাঁটু শক্ত করে একসাথে আগলে রাখলে না কেন? তাহলেই তো সে (পুরুষটি) তোমাকে ধর্ষণ করতে পারতো না।‘

ঘটনাটি ২০১৪ সালের হলেও চলতি মাসে সেটি প্রকাশ পায়। বিচারপতি রবিন ক্যাম্প ধর্ষককে অভিযোগ থেকে অব্যহতি দিয়ে সে সময় যে রায় দিয়েছিলেন, তার আপিল নিষ্পত্তি করতে গিয়ে আলবার্টার প্রভিন্সিয়াল আদালত বিচারপতি ক্যাম্প এর এই মন্তব্য জনসম্মুখে নিয়ে আসে। আপিল আদালত তার রায়ে বিচারপতি ক্যাম্প এর এই মন্তব্য উদ্ধৃত করে তার তীব্র সমালোচনা করলে সেটি মিডিয়ার শিরোনাম হয়। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের চার জন আইনের অধ্যাপক জুডিশিয়াল কাউন্সিলে বিচারপতি ক্যাম্প এর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের শিক্ষকরা তাকে বিচার বিভাগ থেকে অপসারণের দাবি জানান।

সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলে অভিযোগ দায়েরের পর বিচারপতি ক্যাম্পকে ধর্ষণ এবং যৌন হয়রানি সংক্রান্ত সকল মামলার শুনানী থেকে প্রত্যাহার করা হয়। পরে সবধরনের মামলা থেকে তাকে সরিয়ে দেওয়া হয়। আদালত বলেছেন, বিচারপতি ক্যাম্পকে লিঙ্গ সংবেদনশীলতা বিষয়ক প্রশিক্ষণ ক্লাশে যেত হবে এবং হাতে কলমে প্রশিক্ষন নিতে হবে।

প্রসঙ্গত,  কনজারভেটিভ সরকারের আইন মন্ত্রী নির্বাচনের আগে আগে অভিযুক্ত বিচারপতি রবিন ক্যাম্পকে পদোন্নতি দিয়ে সুপ্রীম কোর্টের বিচারক  হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিলেন। 

(খবরটি নতুন দেশ অনলাইন পত্রিকা থেকে সংগৃহীত)

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.