শিশু ‘সুরাইয়া’র অন্যরকম বাড়ি ফেরা

0
Suraiya

ছবিটি সংগৃহীত

উইমেন চ্যাপ্টার: জীবন শুরুর আগেই শুরুটা কেমন জানি হয়ে গেল ‘সুরাইয়া’ নামের শিশুটির। অনেক বড় গল্প নিয়েই বেঁচে থাকার সংগ্রামে শামিল হলো সে। কেউ ডাকে ‘বুলেট শিশু’, কেউ বা ‘বেবি অব নাজমা’। তবে সুরাইয়ার বাবার আপত্তির মুখে বুলেট নামটা বাদ গেছে, এতোদিন সে গণমাধ্যমে পরিচিত ছিল দ্বিতীয় নামেই। পরে তার নাম রাখা হয় সুরাইয়া।  

গত ২৩ জুলাই আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মাগুরায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের মধ্যে সংঘর্ষ চলাকালে গত মাসে মায়ের গর্ভে থাকা শিশু সুরাইয়া গুলিবিদ্ধ হয় এবং তার পিঠ দিয়ে বুলেট ঢুকে, বুক দিয়ে বেরিয়ে যায়।

এই ঘটনা তখন ব্যাপক আলোড়ন তুলে দেশজুড়ে। শিশুটিকে বাঁচাতে আপ্রাণ চেষ্টা চলে। ওই দিনই প্রায় সাড়ে চার ঘণ্টা অস্ত্রোপচারের পর নাজমা বেগম মাগুরা সদর হাসপাতালে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন।

ক্ষতবিক্ষত শিশুটিকে নিয়ে তার দুই ফুপু ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পৌঁছান। মাগুরা থেকে ঢাকায় স্থানান্তরিত হয় সে, এ যাত্রায় মাকে সঙ্গে নেয় না সে। মা তখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জন্মের নির্দ্দিষ্ট সময়ের প্রায় ছয় সপ্তাহ আগেই জন্মের কারণে তার ওজনও ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম। মা নাজমা বেগমের অবস্থাও ছিল সঙ্গীন। পরে মাকেও নিয়ে আসা হয় ঢাকায়। টানা তিন সপ্তাহ শিশুদের বিশেষ পরিচর্যা ইউনিটে চিকিৎসা দেয়ার পর গত রোববার শিশু সুরাইয়াকে তার মায়ের সাথে কেবিনে পাঠানো হয়। মায়ের ওম, বুকের দুধ সব যেন সুরাইয়াকে বাঁচাতে সহায়ক হয়, সেইসাথে ডাক্তারদের নিরলস পরিশ্রম আর চেষ্টা তো আছেই।

এখন দুজনই সুস্থ।  

জীবনের প্রথমভাগটাই যার কাটলো অসংখ্য ঝুঁকির মাঝে, যার বেঁচে থাকাটাই বলা চলে একটা ‘মিরাকল’, সেই সুরাইয়া আজ মায়ের কোলে করে বাড়ি ফিরছে, তার নিজের বাড়ি। বেশ ঘটা করেই দিনটি স্মরণীয় করে রেখে শিশু সুরাইয়াকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে আজ।

চিকিৎসকরা বলছেন, শিশুটির শারীরিক অবস্থা এখন সম্পূর্ণ সুস্থ হওয়ায় তাকে হাসপাতাল ছাড়ার ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। তার চোখে কিছুটা ক্ষত আছে। এজন্য তারা সুরাইয়ার বাবা-মাকে স্থানীয় হাসপাতাল বা জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

যে কারও সবচাইতে নিরাপদ স্থান নাকি তার মাতৃগর্ভ, সুরাইয়ার জন্য সেই গর্ভকেও অনিরাপদ করে তুলেছিল গোলাগুলি করা সেই ‘মানুষগুলো’।

এদিকে যে সংঘর্ষে সুরাইয়া গুলিবিদ্ধ হয়েছিল সেই ঘটনায় পুলিশ প্রধান অভিযুক্ত ব্যক্তিসহ নয়জনকে আটক করেছে এবং সবশেষ আলোচিত ঘটনার একটি হচ্ছে, এই মামলার তিন নম্বর আসামী পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লেখাটি ৮৩ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.