আমাদের ‘দুষ্টু’ আইজিপি সাহেব

যৌন মর্ষকাম, বাংলাদেশ ও ভারতরুমি আহমেদ: ডিয়ার আইজিপি সাহেব, আপনি আসলে খুব দুষ্ট আর রোমান্টিকও বটে। পহেলা বৈশাখের ঐ ঘটনাকে ৩/৪ টা ছেলের ‘দুষ্টুমি’ হিসেবে সংজ্ঞায়িত করে এই কোমল ও স্বল্প রোমান্টিক শব্দটাকে আপনি অন্য এক উচ্চ পর্যায়ে নিয়ে গেছেন।

মানুষগুলো কী রকম বেরসিক। কোথায় এর জন্য আপনাকে কৃতজ্ঞতা জানাবে, তা না করে, আপনার পরিবারের সদস্যদের সাথে একটু দুষ্টুমি করার জন্য অস্থির হয়ে গেছে। খেলার সাথে রাজনীতি মেশানো নিয়মবিরুদ্ধ জেনেও ওরা আপনার পেশার সাথে পরিবারকে মেশাতে চাচ্ছে। কী জঘন্য! দেখুন, দেশের স্বার্থে অবিলম্বে ওদেরকে আইনের আওতায় আনা উচিত।

আর মেয়েগুলোই বা কেমন! আরে বাবা, তোরা তো পহেলা বৈশাখে আনন্দ ফুর্তি করতেই ওখানে গিয়েছিস, তাই না? সেখানে উৎসবের অপরিহার্য অংশ হিসেবে ৩/৪টা নিষ্পাপ ছেলে না হয় তোদের শাড়ি,ওড়না, আচঁল নিয়ে একটু-আধটু দুষ্টুমি করেছে, তাই বলে ভয়ে আতঙ্কে ওইভাবে চিৎকার করতে হবে? টিভিতে সেই দুষ্টুমির ভিডিও ফুটেজ দেখেও নাকি কারো কারো গা ভয়ে শিউরে ওঠেছে। কী আজিব! সামান্য একটু দুষ্টুমিতে এই রকম প্রতিক্রিয়ার কোন মানে হয়!

ছাত্র ইউনিয়ন না কোন ছাইপাশ সংগঠনের নেতা লিটন নন্দীও জানি কেমন। কোনটা দুষ্টুমি আর কোনটা সিরিয়াস এইটাই যদি না বুঝবি, তো ওইসব জায়গায় তুই যাস ক্যানো বাপু! কেন তুই বাধা দিতে গেলি?

আবার দেখুন, কিছু উগ্র নারীবাদী এটাকে ইস্যু বানিয়ে আন্দোলন শুরু করে দিয়েছে। হুহ, দেখে মনে হয়, দেশটা দিনদিন বিপ্লবীতে ভরে যাচ্ছে। কী মুশকিল দেখুন, উগ্র আন্দোলনকারীদের সাথে আমার পুলিশ ভাইয়েরা সামান্য একটু দুষ্টুমি করতে গেলো,আর অমনি সেটা নিয়ে ফেসবুক,মিডিয়ায় তুলকালাম শুরু হয়ে গেলো। এটা কিছু হলো? ওই যে কথায় আছে না, কাজ নাই তো খই ভাজ। যত্তোসব।

কিন্তু আপনারাও জানি কেমন। পুলিশের ভ্যানে অতো বড় আস্ত একটা মাটির টব (পেট্রোল বোমাও হতে পারে কিন্তু) ছুঁড়ে দেয়া ওই সন্ত্রাসী মহিলাকে আমার পুলিশ ভাইয়েরা আদর করে বুঝিয়ে শুনিয়ে মাথায়, চুলে, ঘাড়ে হাত বুলিয়ে বাড়ি পাঠাতে চাইলো। এমন অমায়িক ব্যবহারের পরও শুনলাম এক পুলিশ ভাইকে আপনারা সাসপেন্ড করেছেন। কোথায় পদোন্নতি দিবেন,তা না। পুলিশের প্রতি এ কী রকম অন্যায় অবিচার। মিডিয়ার মনগড়া সৃষ্টিতে না হয় ধরেই নিলাম, ওনারা ৩/৪ মিলে আন্দোলনকারীদের সাথে একটু দুষ্টুমি করেছেন। তাই বলে সামান্য একটু দুষ্টুমির জন্য এভাবে সাসপেন্ড করতে হবে?

সেদিন খবরে দেখলাম, এক পিতার সামনে তার দুই মেয়ে এবং মেয়ের বান্ধবীর সাথে কয়েকটা মাছুম ছেলে একটু দুষ্টুমি করেছে বলে এলাকাবাসীর সে কী প্রতিবাদ।সামান্য একটু দুষ্টুমির জন্য এত্তো রিএ্যাক্ট করতে হয়, বলুন।

ডিয়ার আইজিপি সাহেব, আপনার কাছ থেকে “দুষ্টুমি”র এত্তো সুন্দর আর রোমান্টিক সংজ্ঞা শোনার পর থেকে আমার মাথায় সারাদিন কেবল বাংলা সিনেমার চিরস্মরণীয় সেই ডায়লগ ঘুরতেছে,‪#‎যাহ_দুষ্টু_কোথাকার‬

আমাদের উচিত এর জন্য আপনার কাছে চিরকৃতজ্ঞ থাকা। আর বেরসিক মেয়েগুলোর উচিত একটু রোমান্টিক হওয়া। মেয়েদেরকে দেখলে ৩/৪ টা ছেলে মাঝেমধ্যে একটু আধটু দুষ্টুমি করতেই পারে। ওড়না, জামা,শাড়ির আঁচঁল এগুলো নিয়েই তো মানুষ দুষ্টুমি করবে, তাই না? এ নিয়ে আতঙ্কিত হবার কী আছে? সে সময় বরং আঁচল টেনে টেনে, লজ্জায় রাঙা হয়ে কোমল থেকে কোমলতর কণ্ঠে মেয়েদের বলা উচিত___

‪#‎দুষ্টুমি_করো_না_প্রিয়তম_‬

‪#‎কাছে_এসে_ধন্য_করো_সাধেরই_জনম‬

 

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.