আমি একজন নারী, আমার পিরিয়ড হয়

Thoughtsনাদিয়া ইসলাম: আমি একজন মহিলা এবং আমার পিরিয়ড হয়। (বলেন, হ, সবারই হয়, ঘোষনা দেওয়ার কি আছে?) নিজেরে নারী না বইলা মহিলা বললাম, কারণ আমি আপনার চোখে সম্মানিত কেউ না। আপনার ইচ্ছা হইলে আমারে রমণী ডাকতে পারেন। রমণী- অর্থাৎ রমণ-যোগ্য।

যাই হোক, পিরিয়ড হওয়া আমার কাছে কান চুলকানো বা হাঁচি দেওয়া বা সকালবেলা দাঁত মাজার মতই সাধারণ জিনিস। আমার দোকানে গিয়া ট্যাম্পন কিনতে লজ্জা হয় না এবং আমার পুরুষ চিফ সায়েন্টিস্ট ‘কাজে আসবা না ক্যানো’ জিগাইলে পেট ব্যথা বা বেশি ব্লিডিং হইতেছে- এমন না বইলা বনে বাদাড়ে বাড়ি দিয়া ‘মাথা ব্যথা, বিড়ালের সর্দি’ টাইপ মিছা কথাও কইতে হয় না। আমি পিরিয়ড নিয়া লজ্জিত না। পিরিয়ড হওয়া চুরি করা বা রেইপ কইরা ধরা পরার মত লজ্জাজনক কোনো কাজ না।

ছোটবেলায় আমার বাপ আমার জন্য বাসায় আইসা আরবী পড়াবেন এমন একজন দাড়িওয়ালা জোব্বা পড়া হুজুর রাখছিলেন। উনি প্রথমদিন আইসাই চা নাস্তা-টাস্তা খায়া আশেপাশে আম্মা আছে কিনা দেইখা আমারে মৃদু স্বরে কইলেন, ‘আম্মা, তোমার হায়েজ নেফাস হইছে? তাইলে কিন্তু কুরান ধরতে পারবা না-‘
উনার গলার স্বরে নোংড়া কথা কইতে পারার অশ্লীল আনন্দ আমি এখনো, আজকে, মানে সতের বছর পরেও টের পাই।

আমাদের ধর্ম এবং সমাজ পিরিয়ড হওয়ারে কি কি কারণে ছোট কইরা রাখছেন আমার জানা নাই। মহিলাদের তো আপনারা আপনাদের পাঁজরের হাড্ডি দিয়া বলে বানাইছেন। উনারা এমনিতেই আপনাদের, মানে মহামান্য পুরুষদের চেয়ে অনেক নিচু, নাকি? তারপর ধরেন, এই সাহিত্য, গান-টান- টিভি অ্যাডেও উনাদের প্রত্যেকদিন এক হাত কইরা পানির নিচে নামাইতেছেন।

উনাদের ব্রেইনের সাইজ ছোট, উনারা দৌড়াইতে পারেন না, উনারা রেইপযোগ্য, উনারা গনিমতের মাল, উনাদের পিটাইতে পারলে আপনার পৌরুষত্ব জাহির করা হয়, আপনারা, অর্থাৎ উনাদের স্বামীরা মরলে উনাদের চুল ছাঁইটা গয়না খুইলা সাদা কাপড় পরায় দিতে হয়, কারণ বৌ জীবিত থাইকা স্বামীরে মাইরা ফেলছেন, এমন কালনাগিনী সমাজ এবং সংসারের কলংক, তাই না? উনাদের নিজস্ব নাম নাই, উনাদের নিজস্ব ঘর নাই, উনারা না আছেন ধর্মে, না আছেন সমাজে- উনারা না আছেন আপনাদের সাধের সংসারে-
তো এই মহিলাগুলারে পিরিয়ড নামক সো-কলড ‘অপবিত্রতা’ দিয়া ‘আরো’ খাটো করার আপনাদের কারণটা কি বলেন তো।

আর, আপনি, মানে নিচু জাত, মানে এই আপনি, মহিলা-আপা, আপনেই বা মাথা নিচু কইরা হাঁটেন ক্যান পিরিয়ড হইলে? আপনার পিরিয়ডের রক্ত মাখা ট্যাম্পন কোথায় ফেলবেন তা নিয়া আপনার গলদঘর্মই বা হইতে হয় ক্যানো? আপনার ছেলে কলিগরে দিয়া প্যাড কেনানোর আগে তিনবার আত্মহত্যার কথা ক্যানো চিন্তা করতে হয় আপনার?

আপনার ধর্ম না হয় আপনারে অপবিত্র কইয়া ধর্মগ্রন্থ এবং আপনার স্বামী নামক পবিত্র বস্তু টাচ করতে দেন না, আপনে ক্যানো নিজেরে অপবিত্র মনে করেন? পুরুষে যদি আপনারে পিরিয়ডের কথা জিগায়ে লজ্জায় ফালাইতে চান, আপনে ক্যানো উনাদের বলেন না, ‘হ, তোর আম্মারে গিয়া জিগা রক্ত কোনদিক দিয়া বাইর হয়- উনি তোর দুনিয়াতে আইসা ধর্ম ফলানোর রাস্তাও দেখায়ে দিবেন নিশ্চয়ই। আমি তোর এন্টারটেইনমেন্টের খোড়াক না-‘

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.