আমাদের হারানোর ভয় দেখিয়ে লাভ নেই

0

সুমু হক: উইমেন চ্যাপ্টারের সম্পাদক সুপ্রীতি ধরের অনেক মতের সাথেই আমার মত হয়তো বা মেলে না। নানা কারণে প্রায়শই বকাঝকাও কম করি না। বকা দেয়ার একটা কারণ, রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাবার সময় ঘেউ ঘেউ করা কুকুরের মতোই কিছু অপ্রকৃতিস্থ মানুষের অনলাইনে কিংবা বাস্তব জীবনে করা কিছু অসংলগ্ন প্রলাপকে অহেতুক গুরুত্ব দিয়ে মন খারাপ করে বসা এবং এনিয়ে ভেবে কিছু গুরুত্বপূর্ণ সময় নষ্ট করা।

তো, দিদির প্রতি এবং উইমেন চ্যাপ্টারের প্রতি এক শ্রেণীর মানুষের বিদ্বেষ এবং তার ফলশ্রুতিতে হওয়া সাইবার বুলিয়িং কোন নতুন ঘটনা নয়। উইমেন চ্যাপ্টার শুরু হবার পর থেকে আজ অবধি এতোবার এমন ঘটনা ঘটেছে, যে এটা প্রায় নিয়মের পর্যায়েই চলে গেছে।

প্রথম প্রথম এইসব অশ্লীল ইঙ্গিত, পোস্ট, হুমকি খুব গায়ে লাগতো। এখন আর লাগে না। ইদানিং বরং এইসব প্রতিক্রিয়া বেশ উপভোগ করি। এগুলো ঘটছে তার মানে, কোথাও না কোথাও মানুষ এবং সমাজের জমে থাকা আবর্জনার মতো পঁচে যাওয়া চিন্তার জগতে একটু হলেও ধাক্কা দিচ্ছে আমাদের লেখাগুলো। একটু হলেও নাড়িয়ে দিচ্ছে চিন্তার ভিত। কিছু মানুষকে করে দিচ্ছে দুর্বল। আর নিজেদের দুর্বলতাগুলো এমনভাবে ছাপার অক্ষরে প্রকাশিত হতে দেখে ভয় পেয়ে যাওয়া এই মানুষগুলোই আগ্রাসী হয়ে উঠে আক্রমণ করছে সুপ্রীতি ধরকে, উইমেন চ্যাপ্টারকে, আমাদেরকে।

ওপরে ওপরে চরম পৌরুষ দেখানো এবং ভেতরে ভেতরে কেঁচোর মতন গুটিয়ে থাকা এই মানুষগুলোর প্রতি আমার আর করুণাও হয় না। এরা জানে না, এদের এই প্রতিক্রিয়াশীলতা কেবল একটা বিষয়ই নিশ্চিত করে, আমাদের পথটা এখন পর্যন্ত ঠিকই আছে। আর আর সাথে আরো যেটা বাড়তি পাওয়া, সেটা হলো প্রত্যয়, আত্মবিশ্বাস এবং সামনের দিকে চলার জন্যে আরো প্রাণশক্তি।

আজ মনে হচ্ছে, একটু ক্লিশে শোনালেও, এই সুযোগে নতুন করে কিছু কথা বলে নেবার সময় এসেছে।

প্রথমত, উইমেন চ্যাপ্টারে যারা লেখেন, তারা কেউই খুব দুর্বল চরিত্রের মানুষ নয়, তারা প্রত্যেকেই জীবনের অনেক অভিজ্ঞতাসমৃদ্ধ, লড়াই করে আসা সাহসী মানুষ। এবং আজ এই পর্যায়টুকু পর্যন্ত পৌঁছুতে তাদেরকে পরিবার, সংসার থেকে শুরু করে সমাজ ব্যবস্থা পর্যন্ত অসংখ্য প্রতিকূল শক্তির সাথে যুদ্ধ করে আসতে হয়েছে। সেই জায়গাগুলোতে হার মানেননি বলেই তারা আজও মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছেন। সমস্ত জীবন ধরে লড়াই করে যাওয়া এই মানুষগুলো এই সমস্ত অপরিণত এবং অসভ্য হুমকিতে ভয় পেয়ে হাল ছেড়ে দেবেন, কিংবা লেখা বন্ধ করে দেবেন, এমনটা যারা ভাবে, তাদের সেই অপ্রকৃতিস্থ চিন্তাকে আমল দিয়ে ডিগনিফায়েড না করাটাই শ্রেয়।

দ্বিতীয়ত, যে বিষয়গুলো নিয়ে উইমেন চ্যাপ্টারে লেখা হয়, সেগুলো যে জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকার সাপ্তাহিক বিনোদন কী নারী পাতার সমতুল্য বিষয় নয়, সেই জ্ঞান এসব লেখার লেখক এবং পাঠক প্রত্যেকেরই আছে এবং সেই লেখার ফলে যে ব্যাকল্যাশ অবধারিত, সেটা জেনে এবং মেনে নিয়েই কিন্তু আমরা লিখি।

ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে জানি, এইসব পাঠ-প্রতিক্রিয়া, অন্য সবার কথা না হয় বাদই দিলাম, এমনকি আমার নিজের পরিবার এবং পরিচিত মহলেই খুব প্রীতিকর নয় এবং সেই প্রতিক্রিয়া মাথা পেতে নিয়েই কিন্তু আমরা লিখি। সুতরাং নিজেদের ঠুনকো পুরুষ এবং বিশেষ একটি রাজনৈতিক দলের দেয়া সস্তা প্রেস্টিজ দিয়ে আমাদের মনোবলকে মাপতে আসবেন না, খুব কাঁচা কাজ হয়ে যাবে সেটা।

তৃতীয়ত, ন্যায় এবং নীতির স্থির পথে চলতে চাওয়া মানুষগুলোর মনোবল একটু বেশিই হয়ে থাকে। হারাবার মতো তেমন কিছু নেই, কিংবা থাকলেও সেই হারানোর ভয়ের সামনে মাথা নত করেন না বলেই কিছু মানুষ আমৃত্যু অপরাজিতই থেকে যান। আজ একজন বন্ধু কিছুক্ষণ আগে মনে করিয়ে দিলেন মহাভারতের সেই সংশপ্তকদের কথা, পরাজয় নিশ্চিত জেনেও যারা আমৃত্যু লড়াই করে যান।

আমাদের লড়াইটাও সেই, মাথা উঁচু করে বেঁচে থাকার লড়াই। ভয় বস্তুটি আমাদের তেমন নেই বললেই চলে। থাকবেই বা কেন? কোন রাজনৈতিক দল, গোষ্ঠী কিংবা ক্ষমতাবানের হয়ে লিখতে আসিনি আমৱা! অল্পবিস্তর যা লিখেছি, সবটাই প্রাণের তাগিদে। লেখা প্রয়োজন, প্রতিবাদ করা প্রয়োজন বলে মনে হয়েছে, তাই লিখেছি। তাতে যদি আপনাদের ঠুনকো পৌরুষ কী ক্ষমতার দেয়ালে আঘাত লাগে, তবে সেটা আপনাদের দুর্বলতা, আমাদের নয়।

উপদেশ শুনতে আমি নিজেও যে খুব ভালোবাসি, তা নয়, কিন্তু শেষে এসে একটা কথা না লিখে পারছিনা, “The most dangerous creation of any society is the man who has nothing to lose.” আমরাও কিন্তু সেই সর্বহারাদেরই দলে। হারাবার তেমন কিছু নেই বলে যুদ্ধটাও সবটুকু শক্তি এবং মনোযোগ দিয়ে করবো নিশ্চয়ই।

ভালোবাসা সবাইকে, বিশেষ করে উইমেন চ্যাপ্টারের লেখক, পাঠক এবং নীরব ও সরব সমর্থকদের প্রতি। সংহতি।

লেখাটি 0 বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

RFL
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.